আজ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুন, ২০২২ ইং

সরাইলের অরুয়াইল ভূমি খেকু ৩ চাঁদাবাজ গ্রেফতার

 

হাসনাত কাইয়ুম, সরাইল প্রতিনিধি :

আয়েত উল্লাহ ও বরকত উল্লাহ এবং আইয়ুব আলী এই তিন ভাইকে চাঁদাবাজি মামলায় গ্রেফতারের পর গত সোমবার আদালতে সোপর্দ করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল থানার পুলিশ। তারা সরাইল উপজেলার অরুয়াইল এলাকার হাজী আকবর আলীর ছেলে। রোববার অরুয়াইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই বাপন চক্রবর্তী অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করেন। এ চাঁদাবাজি মামলার অন্যতম আসামি তাদের ভাই আসাদুল্লাহ পলাতক রয়েছেন। মামলাটি গতবছরের ১৯ ডিসেম্বর দায়ের করেছিলেন অরুয়াইল বাজার এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. মোখলেছুর রহমান।

মামলার বাদী ও এলাকাবাসী জানান- আয়েত উল্লাহ, আইয়ুব আলী, আসাদুল্লাহ ও বরকত উল্লাহ সহ তাদের অন্যান্য ভাইয়েরা অরুয়াইল এলাকার একটি ভূমি খেকো সন্ত্রাসী গ্রুপের হাতিয়ার হিসেবে কাজ করে থাকেন। তাদেরকে ব্যবহার করে ওই ভূমি সন্ত্রাসী গ্রুপের প্রভাবশালী লোকেরা অরুয়াইল বাজার এলাকাসহ আশপাশের সরকারি মূল্যবান জায়গা ও সরকারি স্থাপনা অবৈধভাবে দখলে নিয়ে একসময় তারা ভাগাভাগি করেন। আয়েত উল্লাহ, আইয়ুব আলী, আসাদুল্লাহ’র পৈতৃক সূত্রে একসময়ে গ্রামে জায়গা জমি থাকলেও শুধুমাত্র অরুয়াইল বাজার এলাকায় সরকারি মূল্যবান জায়গা ও সরকারি বিভিন্ন স্থাপনা দখল করতেই তারা পৈত্রিক জায়গা বিক্রি করে ভূমিহীন সেজে এখানকার ভূমি খেকো সিন্ডিকেটের সঙ্গে মিশেছে এবং তারা হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। আর তাদেরকে এই অসৎ পন্থায় কাজ করার উৎসাহ দেয়াসহ সরকারি জায়গা-জমি দখলে আর্থিক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন তাদের ভাই বরকত উল্লাহ। ভাইদের এই সহায়তায় বরকত উল্লাহ বর্তমানে কোটিপতি। তার সঙ্গে রয়েছে সেই ভূমি সন্ত্রাসীদের দহরমমহরম।

এদিকে দেখা গেছে, আয়েত উল্লাহ অরুয়াইল বাজার এলাকায় সরকারি অর্থায়নে নির্মিত বেকার দুস্থ নারীদের জন্যে মহিলা মার্কেটের একটি দোকান অবৈধভাবে দখল করে রেখেছেন অন্তত ১১ বছর যাবত। অপরদিকে এই মার্কেটের বাকি দু’টি দোকান দখলে নিয়েছেন স্থানীয় প্রভাবশালী দুই ব্যক্তি। উপজেলা আইনশৃংখলা সভায় এ সরকারি মার্কেট দখলমুক্ত করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হলেও অজানা কারণে নীরব প্রশাসন।

ব্যবসায়ী মোখলেছুর রহমান জানান, আসাদুল্লাহ, আয়েত উল্লাহ ও তাদের অন্যান্য ভাইদের কাজই হলো সরকারি জায়গা দখল। তারা অরুয়াইল এলাকার জনসাধারণের পানি নিষ্কাশনের নালা ও সীমানা খাল দখলের পর অবৈধ পন্থায় তথ্য গোপন করে বন্দোবস্ত আনে। পরে বিষয়টি টের পেয়ে জনস্বার্থে সরকার বন্দোবস্ত বাতিল করে। আমরা এই ভূমি খেকোদের অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় গুম-খুনের নাটক সাজিয়ে মিথ্যা মামলা দেয়; কিন্তু একসময়ে সত্য উদঘাটন হয়। তারা গত বছরের ১৮ ডিসেম্বর আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এসে হামলা চালায় এবং চাঁদা দাবি করে। এ ঘটনায় আমি পরদিন মামলা করি।

অরুয়াইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই বাপন চক্রবর্তী জানান, একটি চাঁদাবাজি মামলায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা দেন বিজ্ঞ আদালত। আয়েত উল্লাহ, বরকত উল্লাহ ও আইয়ুব আলীকে গ্রেফতারের পর আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে, বাকিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ