আজ ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই জুন, ২০২১ ইং

বরিশালের অভিনেতা গোলাম মুস্তাফাকে হারানোর ১৭ বছর আজ

খাঁন ইমরান : বরিশাল প্রতিনিধি

 

ঢাকাই সিনেমার এক অপ্রতিদ্বন্দ্বী অভিনেতা ছিলেন গোলাম মুস্তাফা। নাটক, বিজ্ঞাপন ও চলচ্চিত্র সব অঙ্গনেই ছিল তার বিচরণ। ২০০৩ সালের আজকের এই দিনে তিনি না ফেরার দেশে পাড়ি জমান। তার মৃত্যুতে শোবিজ অঙ্গনে নেমে এসেছিল শোকের ছায়া। তাকে হারানর অনেক বছর হয়ে গেলেও এখনও দর্শকদের মনে রয়েছেন তিনি।

অভিনেতার বাইরেও তিনি ছিলেন একজন বিশিষ্ট আবৃত্তিকার। ১৯৩৪ সালের ২ মার্চ বরিশালের দপদপিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এই অভিনেতা। স্কুলজীবন শুরু হয় পিরোজপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে। ম্যাট্রিক পাস করেন খুলনা জিলা স্কুল থেকে। স্কুল-কলেজ জীবনে নাটকে অভিনয় করা তার শখ ছিল। ঢাকায় আসেন পঞ্চাশের দশকের মধ্য সময়ে। সেই থেকে তিনি ঢাকায় স্থায়ী হয়ে গেলেন।

শখের বশে শুরু করেন অভিনয় জীবন। ১৯৪৫ সালে বরিশাল অশ্বিনী কুমার টাউন হল মঞ্চে বি.ডি হাবিবুল্লাহ রচিত পল্লীমঙ্গল নাটকে তিনি প্রথম অভিনয় করেন। এটাই তার অভিনীত প্রথম মঞ্চ নাটক। পরিণত বয়েসে ষাটের দশকের শুরুতে গোলাম মুস্তাফা নাট্যাভিনয় শুরু করেন।

এরপর ১৯৬০ সালে ‘রাজধানীর বুকে’ ছবি দিয়ে অভিনয় জগতে পা রাখেন। প্রথম ছবি থেকেই তিনি খলনায়ক চরিত্রের একক ও অপ্রতিদ্বন্দ্বী অভিনেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন। এছাড়া তিনি অনেক ছবিতে ভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করলেও খলনায়ক চরিত্রে তিনি ছিলেন অভিন্ন এক অভিনেতা। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে অভিনয় করেছেন প্রায় তিন শতাধিক চলচ্চিত্রে।

বাংলা ও উর্দু মিলে প্রায় তিনশত চলচ্চিত্রে নায়ক, সহনায়ক, খলনায়কসহ বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন গোলাম মুস্তাফা। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য উর্দু চলচ্চিত্র হচ্ছে পীরিত না জানে রীত, কাজল, চোখাই, চান্দা, তালাশ। বাংলা চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে আলিবাবার চল্লিশ চোর, রাজধানীর বুকে, নিজেকে হারায়ে খুজি, রক্তাক্ত বাংলা, রূপালী সৈকতে, সীমানা পেরিয়ে, তিতাস একটি নদীর নাম, সূর্যসংগ্রাম, পদ্মা নদীর মাঝি, এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী, শুভদা, শ্রাবণ মেঘের দিন, ধীরে বহে মেঘনা, চন্দ্রনাথ, দেবদাস ইত্যাদি।

অভিনয় জীবনে খলনায়ক হিসেবেই বেশি সফল হয়েছিলেন তিনি। ১৯৬১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘হারানো দিন’ ছবিতে মদ্যপ জমিদারের ভূমিকায় তার অভিনয় সে সময় জনপ্রিয়তা লাভ করে।

গোলাম মুস্তাফা ১৯৬৫ থেকে ১৯৬৯ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি নাটকে নায়ক চরিত্রে ছিলেন। সেই সময়ে তিনি তার সহ কর্মী বেতারের অভিনেত্রী হোসনে আরার প্রেমে পরে যান। এরপর ১৯৫৮ সালে হোসনে আরার সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তার মেয়ে সুবর্ণা মুস্তাফা বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী।

১৯৮০ সালে এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য সেরা পার্শ্বচরিত্র অভিনেতা, এবং ১৯৮৬ সালে শুভদা চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেতা এবং ছুটির ফাঁদে (১৯৮৯) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য সেরা পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন গোলাম মুস্তাফা। চলচ্চিত্রে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি ২০০১ সালে একুশে পদক সম্মানে ভূষিত হন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ