আজ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

চিরঘুমে ‘সাহেব’

প্রিন্স ঘোষ

মঙ্গলবার সকাল সকালই দুঃখের খবরে ঘুম ভাঙল কলকাতার বাঙালির।কারন তাদের “সাহেব” তাপস পাল ভোর রাতে মুম্বইয়ে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছেন৷ প্রয়াত অভিনেতা ও প্রাক্তন সাংসদ তাপস পাল কলকাতার বাঙ্গালিদের কাছে বাংলা চলচিত্রের “সাহেব” নামেই পরিচিত৷ মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬১ বছর ৷

গোলাকার মুখায়ব, ঠোঁটের ওপর সদ্য গজানো গোঁফ ৷তরুন একজন অভিনেতাকে টেলিফোনের পর্দায় দেখেছিলো ৮০ এর দশকের দর্শকেরা। ‘দাদার কীর্তি’র নিপাট ভাল মানুষ তাপসকে আজও ভুলতে পারেনি আপামোর বাঙালি ৷ আর সেই থেকেই সিনেমার পর্দার মধ্যে দিয়ে বাঙালির ঘরে ছেলে হয়ে দাঁড়ালেন তাপস পাল৷ ‘ভালোবাসা ভালোবাসা’, ‘গুরুদক্ষিণী’, ‘তুমি কত সুন্দর’-এর মতে ছবিতে পর পর মন জয় করেন তিনি ৷ বলিউডে মাধুরী দীক্ষিতের সঙ্গে জুটি বেঁধেও ‘অবোধ’ ছবিতে অভিনয় করেছিলেন তাপস পাল ৷

তবে শুধুই মেইন স্ট্রিম বাংলা ছবিতে নয়, বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত-র অন্যধারার ছবিতেও দুর্দান্ত অভিনয় করেছিলেন তাপস পাল ৷ নজর কেড়েছিলেন ‘উত্তরা’ ও ‘মন্দ মেয়ের উপাখ্যান’ ছবিতেও ৷ বাংলা সিনেমায় একসময় তাপস পাল ছিলেন তুরুপের তাস ৷ সিনেমায় নতুন নায়িকা আসা মানেই তাপসের বিপরীতে ৷ আর তারপর বক্স অফিসে সেই ছবি সুপারহিট ৷ ঠিক যেমন তাপস পাল-দেবশ্রী রায় ৷ তরুণ মজুমদারের ‘ভালোবাসা ভালোবাসা’ ছবিতে জুটি বাঁধলেন ৷ বিপুল সফল হয়েছিল সেই ছবি ৷ তারপর একে একে ‘সাথীহারা’, ‘চোখের আলোয়’, ‘তবু মনে রেখো’ ৷

এরপর তাপস পাল জুটি বাঁধলেব শতাব্দী রায়ের সঙ্গে ৷ শতাব্দীর সঙ্গে জুটি বেঁধে ‘গুরুদক্ষিণা’ তো বাংলা ছবিরে মাইলস্টোন ৷ এরপর ইন্দ্রাণী হালদার, ইন্দ্রাণী দত্ত, রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেও জুটি বেঁধেছিলেন তিনি তিনি ৷ পরিচালক দেবাদিত্যের ‘আটটা আটের বনগাঁ লোকাল’ ছবিতে শেষ দেখা গিয়েছিল তাপস পালকে ৷

অঞ্জন চৌধুরী, অরবিন্দ মুখোপাধ্যায়, তরুণ মজুমদার, তপন সিনহা, হরনাথ চক্রবর্তী, প্রায় সব জনপ্রিয় পরিচালকদের ছবিতেই অভিনয় করেছেন তাপস পাল ৷

২০০৯ সালে রাজনীতিতে পা রাখেন তাপস পাল ৷ ২০০৯ সালেই তৃণমূলের হয়ে ভোটের লড়াইয়ে কৃষ্ণনগর থেকে জিতে সাংসদ হন তিনি ৷ তবে সিনেমায় বাঙালির কাছে ‘সাহেব’ হলেও, রাজনৈতিক জীবনে বহুবারই বিতর্কের মুখে পড়েছিলেন তাপস পাল ৷

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ