আজ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জুন, ২০২২ ইং

যশোরের মেয়ে ফারহানা আফরোজ সেই আলোচিত লেডি বাইকার

 

আক্তারুজ্জামান জুয়েল ,(যশোর) কেশবপুর থেকে:

সাম্প্রতিক গায়ে হলুদের দিনে শহরজুড়ে বন্ধু-বান্ধব ও সাথীদের নিয়ে বাইক র‌্যালি (মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা) করে তুমুল আলোচনা সমালোচনার মুখে পড়া কনে যশোরের মেয়ে ফারহানা আফরোজ।তিনি ব্যতিক্রমী এ আয়োজন করে ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছেন। সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে অনেকেই ফারহানা আফরোজের এই বিষয় টা নিয়ে সমালোচনা করে যাচ্ছেন। কেউ কেউ বুঝে আবার কেউ কেউ না বুঝে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ বিভিন্ন জায়গায় ধর্মীয় ব্যাখা দিয়ে মেয়েটিকে নেগেটিভ ভাবে উপস্থাপন করছেন। আবার অনেকেই দেখছেন সমগ্র নারীর জন্য ইতিবাচক ইস্যু হিসাবে। একজন ফারহানা আফরোজ মাইক নিয়ে অভিনব পদ্ধতিতে গাঁয়ে হলুদের অনুষ্ঠান করে ধর্ম আন্ধতা, কু-সংস্কার, মন গড়া সামাজিক রীতি নীতির টুঁটি চেপে ধরেছেন। চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন নারীরাও পারে, তারা সত্যি পিছিয়ে নেই। একজন নারী যখন অভাবের তাড়নায় গাড়ির চালক হয় কই সমাজ তো তাকে নিয়ে আলোচনা সমালোচনার ঝড় তোলে না। তার সেই গল্পটা তুলে ধরে না। যদি প্রতিটা দুঃখের গল্প, বাস্তব জীবন উপন্যাস তুলে ধরা হত এদেশের হাজার নারী স্বস্তি খুঁজে পেত। সরকার মহল সহ বৃত্তবানরা এগিয়ে আসত। আমাদের সমাজ ব্যবস্থা এমন হয়ে গেছে যে ভালো কিছু করা। কারো সুনাম করতে ভুলে গেছি। মনে করা হচ্ছে ফারহানা আফরোজ সমালোচিত হয়ে আলোচনায় আনতে চেয়েছেন এদেশের হাজার নারীর কথা, তাদের সম-অধিকারের কথা। এটা দোষের কিছু না। বরং বর্তমান সময়ে এটা বড় এবটা চ্যালেস্ন।

ফারহানা আফরোজের পরিচয় ও শিক্ষাঃ- তিনি খ্যাতনামা অভিনেত্রী ববিতা-সুচন্দা-চম্পার ভাতিজী, ফারহানা আফরোজের বাড়ি যশোর সার্কিট হাউজের সামনে। যশোর সরকারি বালিকা বিদ্যালয় থেকে ২০১১ সালে এসএসসি ও ২০১৩ সালে যশোর আব্দুর রাজ্জাক কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। এখন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (ডিআইইউ) থেকে এইচআর-এ এমবিএ করছেন ফারহানা।

গত ১৩ আগস্ট গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান ঘিরে এমন আয়োজন করেন ফারহানা। ফারহানা জানান, সবাই নেচে গেয়ে উদযাপন করেছি গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান। আমি যেহেতু বাইক চালাতে পারি তাই বাইক চালিয়ে অনুষ্ঠান করেছি। ব্যতিক্রমী কিছু করার ভাবনা থেকেই এমন আয়োজন। এটি আমার নিজস্ব উদ্যোগে করেছি। তিনি আরো বলেন, ২০০৭ সাল থেকে তিনি বাইক চালান। বিয়ের অনুষ্ঠানকে ব্যতিক্রমী করতে ভিন্নধর্মী ভাবনা তার মাথায় ছিল। এই ভাবনা থেকেই তিনি এমন আয়োজন করেছেন। বিয়ে, গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে সবাই নেচে গেয়ে উৎসব করেছেন। আমি যেহেতু বাইক চালাতে পারি; তাই বাইক চালিয়েই গায়ে হলুদ ও বিয়ের অনুষ্ঠানে এন্ট্রি দেয়ার পরিকল্পনা করেছি। গত ১৩ আগস্ট ছিল ফারহানার গায়ে হলুদ। পরদিন ১৪ আগস্ট বিয়ে। ছেলে হাসনাইন রাফি পাবনার কাশিনাথপুরের বাসিন্দা। টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার হাসনাইন রাফি ঢাকার গাজীপুরে কর্মরত।

এ বিয়ের অনুষ্ঠান ক্যামেরায় ধারণ করা নাহরুল হায়াত তরু (খান সাহেব) জানালেন, তিনি দীর্ঘদিন ধরেই ক্যামেরায় কাজ করছেন। কিন্তু এমন ব্যতিক্রমী বিয়ে-গায়ে হলুদের আয়োজন দেখেননি। এই গায়ে হলুদের ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ায় অনেকেই তার কাছে ফোন করছেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ