আজ ৯ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জুন, ২০২২ ইং

সরাইলের রাজাপুর বৃদ্ধের রহস্যজনক মৃত্যু

 

সরাইল প্রতিনিধি :

সরাইলে পরচন আলী (৭০) নামের এক বৃদ্ধের মৃত্যুকে ঘিরে অরূয়াইলের রাজাপুর গ্রামে নানা রহস্যের জাল বিস্তৃত হচ্ছে চারিদিকে। স্থানীয় অধিকাংশ লোকজন স্বাভাবিক মৃত্যু বললেও নিহতের পরিবারের লোকজন হামলায় নিহতের দাবী করছেন। আবার অনেকেই বলছেন পরচন আলীর পরিবারের সাথে একই গোত্রের অপর একটি গ্রƒপের জায়গা নিয়ে বিরোধ দীর্ঘদিনের। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। হয়েছে হামলা মামলা ও খুন। ওই খুনের মামলায় ২৭ জনকে আসামি করে গত ৩১ জুলাই আদালতে অভিযোগপত্র পাঠিয়েছেন পুলিশ। ওই মামলায় গ্রেপ্তারকৃত অধিকাংশ আসামীই এখন জামিনে বাড়িতে আছে। প্রতিপক্ষকে আরো ঘায়েল করতে হত্যার অভিযোগ ওঠে থাকতে পারে। পুলিশ, নিহতের পরিবার ও স্থানীয় লোকজন জানায়, পরচন আলীর সাথে আরফাত উল্লাহর জায়গার সীমানা সংক্রান্ত বিরোধ দীর্ঘদিনের। এ বিরোধকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষ একাধিকবার সংঘর্ষে জড়িয়েছে। বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনাও ঘটেছে। একপর্যায়ে পরচন আলীর ভাই আব্দুল্লাহ মিয়া আহত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। পরে পরচন আলীর ছেলে রফিকুল ইসলাম (৩৫) বাদী হয়ে ২৬ জনের বিরূদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার অধিকাংশ আসামি হাজতবাসের পর এখন জামিনে বাড়িতে আছেন। গত রোববার সন্ধ্যায় পরচন আলী হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাকে প্রথমে গ্রাম্য চিকিৎসক কামাল ও অলি উল্লাহর কাছে নিয়ে যায়। অবস্থা খারাপ দেখে তারা হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। নৌকায় করে পরচন আলীকে কুলিয়ারচরের উদ্যেশ্যে রওনা দেয়। পথিমধ্যে পরচন আলী মারা যায়। একই সময়ে আসামি পক্ষের কিছু লোকের সাথে রফিকদের উত্তেজনা বিরাজ করছিল। অল্প সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষও হয়েছে। কিছুক্ষণ পরই প্রতিপক্ষের উসমান মিয়ার বাড়ির সামনে পরচন আলীর লাশ পড়ে থাকতে দেখে যায়। পরচন আলীর পক্ষের কিছু লোক হত্যাকান্ড বলে প্রচার করতে থাকে। তবে ফাঁকে নিহতের ছেলে রফিকের সাথে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের একাধিকবার মুঠোফোনে কথা হয়েছে। রফিক সকলকে জানিয়েছে তার পিতা ষ্ট্রোকে মারা গেছেন। পুলিশ তাকে লাশ দাফনের পরামর্শ দেন। গ্রাম্য চিকিৎসকরাও অসুস্থতার ও প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শের কথা জানান। ঘটনার ঘন্টা খানেক পর তাদের সুর বদলে যায়। তারা বলেন, বৃদ্ধ পরচনের লাশ ময়না তদন্ত করতে হবে। তাকে প্রতিপক্ষের লোকজন হত্যা করে থাকতে পারে। পুলিশ গভীর রাতে বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। সূরতহাল রিপোর্ট তৈরী করেছেন এসআই মো. মিজানুর রহমান। রিপোর্টে দেখা যায় পরচন আলীর সারা দেহে মোট ১৬ টি জখমের চিহ্ন। কিন্তু রক্তপাতের কোন লক্ষণ নেই। প্রত্যেকটি জখমই ছোট ছোট। পরচনের পড়নে কাপড় ছিল। এত গুলো আঘাত হল কিন্তু পড়নের কাপড়ে কোন ছিদ্র বা ছিঁড়াফোটা নেই। এতে করে এ মৃত্যুকে ঘিরে রহস্যের জাল আরো বিস্তৃত হয়ে পড়ে। সোমবার সকালে বৃদ্ধের লাশ ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। পূর্বের হত্যা মামলার বাদী বৃদ্ধের ছেলে মো. রফিক মিয়া বলেন, আমি জেলা শহরে ছিলাম। প্রথমে জানতে পেরেছি আব্বা ষ্ট্রোকে মারা গেছেন। পরে জানতে পেরেছি জামিনে থাকা আসামিরা আব্বাকে মারার জন্য বাজারে বসেছিল। চিকিৎসার জন্য কুলিয়ারচর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মৃত্যুর কথাও শুনেছি। ষ্ট্রোকও হতে পারে। আবার তারা (প্রতিপক্ষ) মেরে ফেলতেও পারে। আমি মনির রফিক অলিচানসহ অনেককেই সন্দেহ করি। মামলা করব। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি বলেন, ষ্ট্রোকেই মারা গেছেন। লাশের শরীরে আঘাত করে খুন প্রমাণ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। সরাইল থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) এ এম এম নাজমুল আহমেদ বলেন, নিহতের স্বজনরা প্রথমে বলল ষ্ট্রোকে মারা গেছেন। কিছুক্ষণ পরই বলেন পিএম করাবেন। ময়না তদন্তের পরই নিশ্চিত হওয়া যাবে আঘাত গুলো মৃত্যুর আগের নাকি পরের। সহকারি পুলিশ সুপার (সরাইল সার্কেল) মো. আনিছুর রহমান বলেন, নিহতের স্বজনদের কথায় ভিন্নতা পাওয়া গেছে। গ্রাম্য চিকিৎসকরাও বৃদ্ধার অসুস্থতার কথাই বলেছেন। এত আঘাতে প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ার কথা। তাও হয়নি। তদন্তেই মৃত্যুর মূল কারণ বেরিয়ে আসবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ