আজ ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৬ই মার্চ, ২০২১ ইং

মানবসেবায় বাংলাদেশ সোসাইটির পবন ইসলাম

 

রতন হোসেন মোতালে : বিশেষপ্রতিনিধি

  

আর্ত-মানবতার সেবায় নিজেকে বিলিয়ে দেওয়ার মধ্যেই রয়েছে জীবনের স্বার্থকতা। জীবনের উদেশ্যে শুধু নিজেকে সুখী করা নয় বরং উদ্দেশ্যে হওয়া উচিত অন্যেকে সুখী করা। কথায় আছে পৃথিবীতে দান করে কিংবা মানবসেবা করে কেউ কখনো গরীব হয়নি, বরং গরীব মানসিকতার মানুষরাই কখনো কারো জন্য কিছু করতে পারেনি। পৃথিবীতে সেই মানুষগুলোই সবচেয়ে সুখের কাছাকাছি যেতে পেরেছে, যারা নিজেদেরকে আর্তমানবতার সেবায় বিলিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছে। নিজের জন্য নয় সমাজ ও মানুষের সেবা করার মাঝেই সবচেয়ে বড় আনন্দ।

‘জীবে দয়া করে যেজন সেজন সেবিছে ঈশ্বর’। এমন একটি প্রবাদ চালু রয়েছে। এখানে জীব যদি মানুষ হয় তবে তো কথাই নেই। মানুষের দুঃখের দিনে তার পাশে থাকার নামই মানবতা। শিশুকাল কাল থেকেই মানুষের কল্যানে নিবেদিত এক প্রান ও মানবতার নাম মোঃ পবন ইসলাম ।

সততা,ন্যায় নিষ্ঠা আর শক্ত মনোবল নিয়েই গুটি গুটি পায়ে হেটে চলছেন অজানা পথে। জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারন করে দেশ ও মানুষের জন্য কিছু করার দৃঢ় মনোবল নিয়ে ঢাকায় পারি জমান বর্তমান ৩৫ বছর বয়সের এই যুবক। নরসিংদী জেলার বেলাব থানার মোগা গ্রামের জীবন যুদ্ধে পারি দিতে হয়েছে অনেক পথ। কর্মব্যস্ততার মধ্য দিয়ে যতটুকু সময় পেয়েছেন তার সবটুকু সময়ই দিয়েছেন শ্রমিক মেহনতী মানুষের সেবায়।

ঢাকার দীর্ঘ দিনের পথচলায় প্রথম শুরু করেন শ্রমিকদের অধিকার নিশ্চিত করনে যুক্ত হন ভাড়াটিয়া পরিষদ সাভার ও আশুলিয়া থানা কমিটিতে। শ্রমিক অধিকার বাস্তবায়নের অত্যান্ত সুনামের সাথে কাজ করেন তিনি। বহু প্রতিকুলতার মধ্য দিয়ে পথ চললেও পিচ পা হননি কখনও। তারই ধারাবাহিকতায় মানবতার কল্যানের কাজকে আরো বেগবান করতে যোগদান করেন মানবিক বাংলাদেশ সোসাইটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে। সেখানেও সুনামের সাধে কাজ করেছেন এই মানবতার সেবক মোঃ পবন ইসলাম । রাজনৈতিক ক্ষেত্রেও রয়েছে তার বিশেষ ভুমিকা। তিনি শুধুমাত্র একজন নেতাই নন, আমজনতাসহ তৃনমূল নেতাকর্মীর দুই নয়নের মনি। নেতাকর্মীর বিশ্বাসের অন্যতম এক ব্যক্তি হলেন মোঃ পবন ইসলাম। খুব অল্প সময়েই সকলের আস্থার প্রতীক হয়ে উঠেছেন সর্বস্থরে। সাধারন মানুষ তার কাছে খুব সহজেই মিশতে পারছে, প্রিয় ব্যক্তির নিকটে জানান দিতে পারছে তাদের সকল সমস্যার কথা। অনেকে আবার আবেগী হয়েও পরছেন মানবাতার সেবককে খুব কাছাকাছি পেয়ে। যেখানেই যান তিনি তার সকলকে বুকে আগলে রাখেন। এমন দৃষ্টান্ত যা অন্য ব্যক্তির মধ্যে পাওয়া দুষ্কর। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন ধারণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের সকল উন্নয়নের বার্তা মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে দ্বারে দ্বারে, দিন-রাত ছুটে চলছেন কর্মীবান্ধব এ নেতা।

খাল-বিল, নদী-নালা কিছুই তাকে রুখতে পারনি। তিনি ছুটে চলেছেন শুধু নিজ এলাকাতেই নয়, জেলার প্রতিটি প্রত্যন্ত অঞ্চলে ও দলের কল্যাণে সরকারের উন্নয়নের ডংকা বাজিয়ে চলেছিলেন এই মানবতার সেবক তার কাছে দিন আর রাতের মধ্যে কোন পার্থক্যই ছিলনা। তাকে নিয়ে জনমনে ভাবনার প্রকাশ হচ্ছে এভাবে যে, “একটা মানুষ কিভাবে এত দৌড়াদোড়ি করতে পারে । রাস্তায় কোনো অসহায়,কোনো রিকশাচালক,বঞ্চিত কারো দেখা মিললেই হঠাৎ দাড়িয়ে যান তিনি, শুনেন তাদের সুখ- দুঃখের কথা! তবে কে কী বললো, না বললো সেদিকে কর্ণপাত করেন না এই সেবক। মোঃ পবন ইসলাম দিনের পর দিন, মাসের পর মাস তিনি সকল ভালো কাজগুলোই মানব কল্যাণে করে যাচ্ছেন। দিনের তপ্তরোদে কখনো ভ্যানচালকের পাশে, কখনো তাকে দেখা মিলে রিক্সাওয়ালার অথবা শ্রমিকদের পাশে। দলের কোন কর্মীর দুঃ সংবাদ শুনলে,যিনি কালবিলম্ব না করেই সাথে সাথেই ছুটে যান সেই কর্মীর পাশে। নেতা যে শুধুই দলের নয়, সে যে আত্ম মানবতারও নেতা, তা হাড়ে হাড়ে বেলাববাসীকে কিছুটা হলেও বুঝিয়ে দিয়েছেন এই নেতা। জনগন হচ্ছে দেশের সম্পদ। তাদের সমস্যা সমাধান করে সুখি,সমৃদ্ধ দেশ গড়ে তোলার প্রত্যয়ে মানবতার সেবক হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন কর্মীবান্ধব এ নেতা । সে আজ অসহায়দের জন্য মানবতার সেবক।

বর্তমানে তিনি মানবিক বাংলাদেশ সোসাইটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে দায়িত্বে আছে। আমরা সামনে পেছনে যেদিকেই তাকাই না কেন সমাজে এরকম মানুষের সংখ্যা খুব কমই লক্ষ্য করা যায়। কারণ বলা হয়ে থাকে এখন মানুষের নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধ আগের তুলনায় অনেক বেশি দুর্বল। মানুষ আর নিজের জীবনের আরাম আয়েশ জলাঞ্জলি দিয়ে অন্যদের নিয়ে ভাবতে চায় না। তবে সমাজে ভালো মানুষের সংখ্যা একেবারে ফুরিয়ে গেছে তা মনে হয় না। এতো কিছুর পরও এখনো সৃষ্টি হচ্ছে এ যুগের শত সহস্র পবন ইসলাম। এভাবেই প্রকৃত মানুষ মানুষের উপকারে ব্রতী হবে। আসুন কামিনী রায়ের মতো বলি, ‘আপনারে লয়ে বিব্রত রহিতে, আসে নাই কেহ অবনী’পরে, সকলের তরে সকলে আমরা, প্রত্যেকে মোরা পরের তরে’।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ