আজ ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুলাই, ২০২১ ইং

করোনার মধ্যে এইচএসসি না নেওয়ার দাবি জানিয়ে শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদন : 
৫ থেকে ৬ মাস ধরে আটকে থাকা  এইচএসসি পরিক্ষা, সম্প্রতি সময়ের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিক্ষা নেয়ার কথা ভাবছে সরকার। যেখানে প্রতিদিন ৩০০০ হাজারের মতো নতুন রোগী সনাক্ত ও   ৪০/৪৫ জনের মতো মৃত্যু হচ্ছে। এই পরিস্তিতে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা না নেয়ার দাবি জানিয়েছে। তারা ভার্চুয়াল আন্দোলন শুরু করেছে, শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পেইজ খুলে,,তার নাম ”করোনায় এইচএসসি নয়”,যার সদস্য ১ লক্ষ ২০ হাজারের অধিক ছাড়িয়েছে।
একজন  পরিক্ষার্থী মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর নিকট খোলা চিঠি প্রকাশ করেন ওই পেইজ-এ।তা নিচে দেওয়া হলো:-
খোলা চিঠি
তারিখঃ১৮-০৮-২০
বরাবর,
মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী –
১৩ লক্ষ পরিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আপনাকে সালাম জানাই আসসালামু আলাইকুম।
আসলে আমরা যারা এইচএসসি পরিক্ষার্থী – আমরা পড়া তো দূরের কথা চিন্তা & আতংকে আমাদের প্রতিটা সময় পার করতে হচ্ছে। কোনো কোনো সময় বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল পরিক্ষার বিষয়ে এমন সব নিউজ প্রকাশ করছে যেটা আমাদের জীবন্ত লাশে পরিণত করে দিচ্ছে।
মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী – আপনি পরিক্ষা নিবেন এটাতে আমাদের কোনো সমস্যা নেই।
কিন্তু যখন এই করোনা ভাইরাসের ভেতর পরিক্ষা নেওয়ার কথা বলা হচ্ছে তাতে আমাদের ঘোর আপত্তি আছে। আপনি যদি করোনার ভেতরে পরিক্ষা নেন তাহলে-
১. যেসব এলাকায় বন্যার পানিতে ভেসে গিয়েছে তারা কিভাবে পরিক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিবে? যেখানে তারা তিনবেলা খেতেই পারছে না?
২. আমি এমন পরিক্ষার্থীকেও দেখেছি যার বাবা দিনমজুর। যে সন্তানকে টানা দুইবছর হাড়ভাংগা খাটুনি খেটে ছেলে-মেয়েকে পড়িয়েছে অথচ এই করোনায় তার কাজ না থাকায় পরিক্ষার্থীও দুমুঠো খাবার জোগাড় করার উদ্দেশ্যে বেরিয়েছে।সে এখন কি করে পরিক্ষা দিবে?
৩. যেসব মধ্যেবিত্ত ফ্যামিলি ঢাকায় থাকত তারা কিন্তু গ্রামে চলে এসেছে। এখন অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের সম্মুখীন তারা।তারা এখন কিভাবে ঢাকায় অথবা শহুরে এলাকায় গিয়ে পরিক্ষা দিবে?
৪. তেরো লক্ষ পরিক্ষার্থীর ভেতরে প্রতিদিন কি একজনও করোনায় আক্রান্ত হবে না?  আর যদি আক্রান্ত হয় কেউ তাহলে দায়ভার কে নিবে?
৫।আক্রান্ত পরিক্ষার্থীর কি হবে? ১২ বছরের ক্যারিয়ার কি নষ্ট হয়ে যাবে?
৬. আর এই পাঁচমাসে আমরা মানসিক ভাবে খুব অসুস্থ হয়ে পড়েছি। পড়াশোনা কিছুই মনে নাই।তাহলে আমরা এই করোনার ভেতর কিভাবে পরিক্ষা দিব? যেখানে আমাদের গোল্ডেন প্লাস স্বপ্ন এখন পাস মার্কস পাব কিনা সেটা নিয়েও সন্দেহ।
৭.আমরা ১১ লক্ষ প্রায় মধ্যেবিত্ত ঘরের সন্তান। আমরা ইচ্ছা করলেও হয়তো অতটা সতর্ক থাকতে পারি না কারণ আমাদের খাবার জোগাড় করতে হয়।এখন এই দুঃসময়ে আমরা কি করব!
সবশেষে বলি, মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী আপনি পরিক্ষা নিলেও আমাদের কোনো সমস্যা নেই কিন্তু উপরে বর্ণিত এই বিষয়গুলো সামনে রেখে এগোবেন বলে ভরশা রাখি ।
আর গণপাশ বা অটোপাশ কোনো শিক্ষার্থী পেতে চায় না। তবুও পরিস্থিতি মেনে নিতে আমরা বাধ্য।তবে প্লিজ আমাদের জীবন নিয়ে খেলবেন না।আমাদের জীবন ই আগে।
সবশেষে বলি-
“জীবন বাঁচাও আগে
HSC হোক পরে”।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ