আজ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে জুন, ২০২২ ইং

নওগাঁয় কেটে গেল ২০ বছর বিচারের অপেক্ষায় আলফ্রেড সরেন হত্যা

 

মোঃ ফিরোজ হোসাইন
নওগাঁ প্রতিনিধিঃ

নওগাঁর আদিবাসী নেতা আলফ্রেড সরেন হত্যার বিচারের অপেক্ষায় কেটে গেল ২০ টি বছর। ২০ বছর আগে ভূমিদস্যুদের হাতে নির্মমভাবে সরেনের মৃত্যু হলেও এখনও ওই মামলার কোনো সুরাহা হয়নি। ভবিষ্যৎ মামলাটি নিয়ে আদিবাসীদের মধ্যে রয়েছে সংশয়।

আদিবাসীদের অভিযোগ , জামিনে থাকা আসামিরা অব্যাহতভাবে হুমকি-ধমকি দেওয়ায় ইতোমধ্যে অনেক আদিবাসী পরিবার মহাদেবপুর উপজেলার ভীমপুর আদিবাসী পল্লি ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়েছে। বর্তমানে যে ক’টি পরিবার এখনও বাস করছে, তারাও ভূমিদস্যুদের ভয়ে জমিতে চাষাবাদ করতে পারছে না। ফলে পরিবারগুলো চরম অভাব-অনটন ও নিরাপত্তাহীনতার মধ্য দিয়ে দিন পার করছে। পল্লি ছেড়ে সাক্ষীরা চলে যওয়ায় মামলার ভবিষ্যৎ নিয়ে সন্দিহান বাদী আলফ্রেডের ছোট বোন রেবেকা সরেন।

২০০০ সালের ১৮ আগস্ট ভীমপুর আদিবাসী পল্লিতে সন্ত্রাসীদের হামলায় আলফ্রেড সরেন নৃশংসভাবে খুন হন। ওই ঘটনার পর নিরাপত্তার জন্য সেখানে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প বসানো হয়। পরে তা গুটিয়ে নেওয়া হয়।
এ মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী মহসীন রেজা জানান, আলফ্রেড সরেন হত্যার ঘটনায় তার বড় ভাই কমল সরেন ও ছোট বোন রেবেকা সরেন হত্যা ও জননিরাপত্তা আইনে দুটি মামলা করেন। পুলিশ ৯১ আসামির নামে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। এর মধ্যে পুলিশ কয়েক টি আসামিকে গ্রেপ্তার করে। ওই সময় নওগাঁ দায়রা জজ আদালতে মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয় এবং ৪১ সাক্ষীর মধ্যে সে সময় ১৩ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ হয়। চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর জননিরাপত্তা আইন বাতিল করে। ওই সময় পলাতক সীতেষ চন্দ্র ভট্টাচার্য ওরফে গদাই (প্রয়াত), হাতেম আলীসহ ৬০ জনের বেশি আসামি জননিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলাটির বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করলে মামলাটি স্থগিত করেন আদালত। এতে আসামিরা জামিনে বেরিয়ে আসে। পরে আপিল বিভাগে আবেদন করে বাদীরা মামলাটির কার্যক্রম চালু রাখার অনুরোধ জানান। আপিল বিভাগ আবেদনটির শুনানি শেষে পূর্ণাঙ্গ শুনানির জন্য হাইকোর্ট বিভাগে পাঠিয়ে দেন। আলফ্রেড সরেনের ছোট ভাই মহেশ্বর সরেন বলেন, আসামিরা এখনও আমাদেরেকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ