আজ ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৮শে জুলাই, ২০২১ ইং

পত্নীতলায় করোনা মুক্ত হলেন ইউএনও  লিটন সরকার ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. খালিদ সাইফুল্লাহ 

রাব্বী হোসাইন , পত্নীতলা (নওগাঁ)
প্রতিনিধিঃ

নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. লিটন সরকার ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃএস এম খালিদ সাইফুল্লাহ  করোনা যুদ্ধের সম্মুখ যোদ্ধা  করোনামুক্ত হয়েছেন।


পত্নীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সরের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. দেবাশীষ রায় জানান, ইউএনও’র  হালকা গলা ব্যাথা অনুভব হলে গত ২১ জুলাই  পরীক্ষার জন্য নমুনা দেন। ২৪ জুলাই রিপোর্টে করোনা পজেটিভ আসে। এর পর থেকে তিনি বাসায় হোম আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নেন। পরের ফলোআপ রির্পোট নেগেটিভ আসে ,সবশেষে  ৩ আগষ্টে নমুনা দেনর্  শুক্রবার সন্ধ্যায় ফলোআপ রিপোর্ট  আসে নেগেটিভ।উপজেলা নির্বাহী অফিসার লিটন সরকার বলেন রেজাল্ট পজেটিভ আসার পর থেকে তিনি ২০ দিন যাবৎ বাসায় আলাদা রুমে থেকে চিকিৎসা নেন । অন্যদিকে ডাঃ খালিদ সাইফুল্লাহ’র করোনা  উপসর্গ  দেখা দিলে গত ১৪  জুলাই নমুনা দেন  এর পর থেকে তিনি  খুব অসুস্থ হয়ে পরেন  তাঁকে রাজশাহী তে রেফার করা হয়  রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ঐউট তে চিকিৎসাধীন ছিলেন । তাঁকে হাই ফ্লো অক্সিজেন   দেয়া হয়েছিল,  মৃত্যুর কাছ থেকে ফিরে এসেছেন মৃতুন্জয়ী এই চিকিৎসক। এর পর তার ফলোয়আপ সব রিপোর্ট  নেগেটিভ  আসে তিনি গত  বৃহস্পতিবার ( ৬ আগষ্ট ) পত্নীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিজ কর্মস্থলে   যোগদান করেন।করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে পত্নীতলা উপজেলা র্নিবাহী অফিসার উপজেলার  পৌর এলাকাসহ ১১ টি ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে মাইকিং, প্রচারপত্র বিলি, হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতকরন , বিনা প্রয়োজনে বাড়ি থেকে বের না হওয়া নিশ্চিতে তদারকী, বিদেশ ফেরৎ ব্যক্তিদের নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান নিশ্চিতে নিয়মিত তদারকী সামাজিক দুরত বজায় রেখে চলাচলের নির্দেশনা, করোনা ভাইরাসকে পুঁজি করে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি রোধে নিয়মিত বাজার তদারকী ও অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থাগ্রহণসহ দেশের এই জরুরী পরিস্থিতিতে উপজেলাবাসিকে সর্বোচ্চ সচেতন করতে এবং সরকারের দেয়া নির্দেশ বাস্তবায়নে দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন । কর্মহীন অসহায় , দুস্থ , নিম্নবিত্তদের ত্রাণ বিতরন করা সহ সামাজিক নিরাপত্তা প্রদানে দিনরাত নিরলসভাবে কাজ করেন ।অসহায়দেও বাড়ী বাড়ী ফেরী করে রাতের আধারে সরকারী ত্রাণ পৌছে দিয়েছেন ,নিজের পরিবার যখন কাছে যায় না থখন  করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন করেছেন প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের লোকেরা ।উপজেলায় যোগদান তার ১ বছরও হয়নি  এরি মধ্যে  মাত্র কয়েক মাসে একেরপর এক ভাল কাজ করে  সাধারনের কাছে হয়েছেন মানবতার ফেরিয়ালা , আস্থার প্রতিক । ফলশ্রুতিতে নিজেই করোনা আক্রান্ত হোন ।
পত্নীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃএস এম খালিদ সাইফুল্লাহ মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দিতে গিয়ে  নিজেই আক্রান্ত হয়েছেন । তিনি  টঐঋচঙ   হিসাবে যোগদানের পর থেকে হাসপাতালে সেবার মান উন্নত হয়েছে  , গরীব অসহায়রা হাসপাতাল মুখি হয়েছেন ।
উপজেলার প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের উচ্চ পদের দুই কর্মকর্তা  সর্বস্তরের মানুষ, আত্মীয় স্বজন শুভাকাঙ্ক্ষী সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। সকলকে সাবধানে, নিরাপদে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা সহ ঘরের বাহিরে  বাধ্যতামূলক  মাস্ক ব্যবহার করার আহবান জানিয়ছেন  । উপজেলায় এ  পর্যন্ত আক্রান্ত সংখ্যা ৭৭ জন এদের মধ্যে সুস্থ ৬৭ জন,  মৃত্যু হয়েছে ২ জনের এমটিইপিআই স্টাফ আব্দুস সাত্তার ও সিএইচসিপি স্টাফ নিলুফার ইয়াসমিন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ