আজ ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে    যৌন লালসায় যুবতী অন্তঃসত্ত্বা,  টাকার বিনিময়ে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা

 

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি :

ফটিকছড়ি’র পাইন্দং ইউপির বেড়াজালী গ্রামে শিমু নামে এক যুবকের যৌন লালসায় এক গরীব যুবতী ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হবার খবর পাওয়া গেছে। টাকার বিনিময়ে এ ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, উপজেলার পাইন্দং ইউপির বেড়াজালী গ্রামের জমির চৌধুরী বাড়ীর এখলাছুর রহমান চৌধুরীর পুত্র মোজাম্মেল হক চৌধুরী শিমু (২৮) পাশর্^বর্তী ভূঁইয়া পাড়া রঞ্জু বাপের বাড়ীর, হতদরিদ্র মাহাবুল আলমের কন্যা ফাতেমা আকতার মুন্নির (২১) সাথে, দু’বছর পূর্ব থেকে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং সেই সূত্রে বছর খানেক পূর্ব হতে, বিয়ের প্রলোভনে শারীরিক সম্পর্ক শুরু করে। এরই ফলে যুবতী মুন্নি এখন ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

কিন্তু যুবক শিমু যুবতী মুন্নিকে পরিবারের মান-সম্মান খোয়া যাবে- অজুহাতে এখন আর বিয়ে করতে রাজী নয়। এতে বিপাকে পড়ে অন্তঃসত্ত্বা মুন্নি। অনেকটা জোর করেই তাকে গর্ভপাত করার চাপ দিয়েছে যুবক শিমু। তবে নাছোড় বান্দী মুন্নি কোন মতেই গর্ভপাত করাতে রাজী নেই।

বিয়ে আর সন্তানের পিতৃত্ব দাবী করে মুন্নি সমাজে বিচার চাইলেও খোদ সমাজপতির পুত্রের এ লাম্পট্যতার বিচার কেউ করতে চাচ্ছে না; বরং অপারগতাই প্রকাশ করেছে। ফলে বাধ্য হয়ে যুবতী মুন্নি গত ২৪ জুলাই ফটিকছড়ি থানায় একটি মামলা দায়ের করে। এ নিয়ে এলাকায় আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে। এলাকাবাসী জানিয়েছে- লম্পট যুবক শিমু আরো একাধিক ঘটনা ঘটিয়ে পার পাওয়ায় হতদরিদ্র পরিবারের মেয়েটিকে জোর-জবরদস্তি করে প্রেমের ফাঁদে ফেলে সর্বনাশ করেছে। তার উচিত বিচার হতে হবে। ‘চৌধুরী পরিবার’ কিংবা ‘সমাজপতির পুত্র’ বলে পার পাওয়া যাবে না।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী পুলিশ অফিসার এসআই চেন মং রাখাইন জানান, বাদীনির মেডিকেল পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। আসামী পলাতক রয়েছে। আমরা ওই আসামীকে ধরার জন্য চেষ্টা করছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ