আজ ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল আর স্লোগানে উত্তাল ইষ্টার্ণগেটের রাজপথ

 

খুলনা ব্যুরো প্রধান
জিয়াউল ইসলাম :

নগরীর খানজাহান আলী থানাধীন মশিয়ালী গ্রামে ট্রিপল হত্যার মূলঘাতক পালাতক জাকারিয়া, মিল্টনসহ অভিযুক্ত সকল আসামী ও ঘটনার নেপত্থের মদদ দ্বাতাদের গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টন্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত এবং ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধারের দাবীতে ইষ্টার্ণগেট এলাকায় করোনাকে উপেক্ষা করে সর্বস্থরের মানুষের উপস্থিতিতে রাজপথ ছিল উত্তাল।
আজ সোমবার সকাল ১০টায় বৃহত্তর মশিয়ারী গ্রামবাসীর উদ্যোগে খুলনা যশোর মহাসড়কের ইষ্টার্ণগেটে আয়োজিত মানববন্ধন. বিক্ষোভ মিছিলে মিছিলে আর স্লোগানে উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকায়। মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে গ্রামের সর্বস্থরের নারী-পুরুষের সাথে যোগ দেয় নিহতদের পরিবারের স্বজনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বর ৩৬নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আ. হামিদ সরদারের সভাপতিত্বে এবং আকুঞ্জি রেজওয়ান রাজার পরিচালনায় মানবন্ধনে বক্তাদের বক্তব্যে উঠে আসে খুলনার প্রশাসনের সর্বোচ্চ কর্তা ব্যক্তিদের ঘোষনার পরও মূল আসামী জাকারিয়া-মিল্টন গ্রেফতার এবং অস্ত্র উদ্ধার না হওয়ার ক্ষোভের কথা।
মানববন্ধনে মহানগর আওয়ামীলীগের সাবেক সহ-সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী ও খানজাহান আলী থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ আবিদ হোসেন বলেন, মহানগর আওয়ামীলীগ মশিয়ালীর নিশংস এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেফতার এবং সন্ত্রসীদের ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধারে যে সাত দিনের সময় বেধে দিয়ে আল্টিমেটাম ঘোষনা করেছে থানা আওয়ামীলীগ তার সাথে একত্বতা প্রকাশ করছে। বেধে দেওয়া সময়ের মধ্যে ঘাতকসহ এদের মদদ দ্বাতাদের এবং অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে ব্যর্থ হলে মশিয়ালী গ্রামবাসী যে সিদ্ধান্ত গ্রহন করবে তার সাথে সংহতি প্রকাশ করে মাঠের আন্দোলন সংগ্রামে তাদের সর্বোচ্চ শক্তি প্রযোগ করবেন। এ সময় নিহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে নিহত নজরুলের ভাই মজিবর বলেন, মশিয়ালী গ্রামবাসী ঘটনার পর পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাদের দেওয়া ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেখেছে। পরবর্তিতে প্রশাসনের উর্ধতন কর্তা ব্যক্তিদের দৃড়তা এবং আন্তরিকতার সাথে আশার বানী শুনেছে । সর্বশেষ আওয়ামীলীগের খুলনার নীতি নির্ধারকদের আল্টিমেটাম ও হুঁশিয়ারির পরও হত্যার সাথে জড়িত মূল ঘাতক জাকারিয়া, মিল্টনসহ অভিযুক্ত ১৮ আসামীকে পুলিশ গ্রেফতার বা অস্ত্র উদ্ধার করতে পারিনি। তিনি বলেন আমরা বরাবরই আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল আগামী দুই এক দিনের মধ্যে ঘাতকদের গ্রেফতার পুর্বক দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের ব্যবস্থা এবং অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে ব্যর্থ হলে খুলনার ইতিহাসে সর্বচ্চ আন্দোলন সংগ্রামের ডাক দেওয়া হবে। মানববন্ধনে আটরা গিলাতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ মনিরুল ইসলাম বলেন, ঘাতকদের নিশংস এই হত্যাকান্ড একমাত্র ক্রসফায়ার ছাড়া কিছু হতে পারে না। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন খানজাহান আলী থানা অফিসার্স ইনচার্জ মো. কবির হোসেন, থানা কমিউনিষ্ট পার্টির সভাপতি আ. ছাত্তার মোল্যা, শিরোমণি তরুণ সংঘের সভাপতি শেখ তরিকুল ইসলামসহ এলাকার বিভিন্ন স্থরের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
এদিকে খানজাহান আলী থানার অফিসার্স ইনচার্জ(ওসি তদন্ত)মো. কবির হোসেন জানিয়েছেন চঞ্চল্যকর মামলাটির দায়িত্ব ডিবিকে দেওয়া হয়েছে। গ্রেফতারকৃত রিমান্ডে থাকা আসামীদেরকে ডিবির কাছে হস্থান্তর করা হয়েছে। মামলারটির নতুন দায়িত্ব পেয়েছে ডিবির ইন্সপেক্টর এনামুল হককে। একটি সুত্র বলছে ট্রিপল মামলার গ্রেফতারকৃত অন্যতম আসামী মহানগর ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি জাফরিন রিমান্ডে বিভ্রন্তিকর সব তথ্য দিচ্ছে। বিভ্রান্তিকর তথ্য এবং অস্ত্র উদ্ধার সম্পর্কে দেওয়া তথ্যের যাচাই-বাছার করা হচ্ছে।
উল্ল্যেখ্য গত ১৬ জুলাই মশিয়ালী গ্রামের জাকারিয়া-জাফরিন ও মিল্টন বাহিনীর গুলিতে তিনজন নিহত হওয়ার ঘটনার খানজাহান আলী থানায় জাকারিয়া-জাফরিন-মিল্টনসহ ২২জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করে গুলিতে নিহত ছাত্র সাইফুলের পিতা সাইদুৃল ইসলাম। এই মামলায় এ পর্যন্ত চারজন গ্রেফতার হলেও মূল হত্যাকারী জাকারিয়া মিল্টনসহ অন্য আসামীদের পুলিশ গ্রেফতার এবং ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার করতে পারিনি।

খানজাহান আলী থানাধীন মশিয়ালী গ্রামে ট্রিপল হত্যার মূলঘাতক পালাতক জাকারিয়া, মিল্টনসহ অভিযুক্ত সকল আসামী ও ঘটনার নেপত্থের মদদ দ্বাতাদের গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টন্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত এবং ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধারের দাবীতে ইষ্টার্ণগেট এলাকায় মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করে এলাকাবাসী

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ