আজ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং

চারঘাটে ভাঙ্গনে হুমকির মুখে মসজিদসহ ঘরবাড়ি

শাহজাহান, কাটাখালি প্রতিনিধি, রাজশাহী:  
চারঘাটে বর্ষা মৌসুমে ব্যপক বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে পদ্মার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পদ্মাতীরবর্তী এলাকার বাধে ফাটল দেখা দিয়েছে। ফলে বিলীন হতে চলেছে রাওথার একটি মসজিদ সহ পদ্মাতীরবর্তী এলাকার অসংখ্য বসতবাড়িঘর। এতে আতঙ্কে দিন পার করছে পদ্মা নদী তীরবর্তী গোপালপুর, পিরোজপুর, রাওথা, চন্দনশহর, ইউসুফপুর, টাঙ্গন এলাকার মানুষেরা।সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ইউসুফপুর ইউনিয়নের টাঙ্গন ও রাওথা গ্রামের নদীতীরবর্তী এলাকায় ভাঙ্গন শুরু হয়ে গেছে। ভাঙ্গনের কবলে পড়ে বিলীন হতে চলেছে উপজেলার চারঘাট ইউনিয়নের রাওথা গ্রামের একটি মসজিদ। রাওথা গ্রামের দত্তপাড়া গ্রামের আব্দুস সালামের স্ত্রী মনোয়ারা বলেন, স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা প্রতিশ্রুতি দিলেও স্থায়ী পাকা বাধ নির্মানে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখছি না। একই গ্রামের জামালের স্ত্রী মজিফা বলেন শুধু প্রতিশ্রুতি নয়, পাকা বাধ নির্মান করে এলাকাবাসীকে ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করেন। একই চিত্র দেখা যায় টাঙ্গনের নদীতীরবর্তী এলাকায়।এলাকাবাসীর অভিযোগ শুধুমাত্র বর্ষা মৌসুমে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ দিয়ে সাময়িক বাধ রক্ষা না করে স্থায়ী পাকা ও টেকশই বাধ নির্মান করা যাতে করে নদীতীরবর্তী গ্রাম বাসীরা নদী ভাঙ্গন থেকে রক্ষা পায়।

উল্লেখ্য যে, চারঘাট সীমানায় পদ্মার প্রায় ২০ কি:মি: দীর্ঘ তীরবর্তী এলাকা রয়েছে যার অধিকাংশ তীরবর্তী জায়গায় মানুষ বসবাস করে। এই নদীতীরবর্তী এলাকায় উল্লেখযোগ্য কয়েকটি স্থান যেমন বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমী ও রাজশাহী ক্যাডেট কলেজের কয়েক কি:মি: এলাকা ব্লক দিয়ে পাঁকা বাধ দেয়া থাকলেও অধিকাংশ তীরবর্তী এলাকা অরক্ষিত বা কাঁচাবাধ। ফলে প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে কাঁচা বাধে ফাটল দেখা দেয়। কোন কোন সময় বাধ ভাঙ্গন ধরলে বালু ভর্তি জিওবি ব্যাগ দিয়ে সাময়িকভাবে কাচাঁ বাধ রক্ষার জন্য চেষ্টা করা হয়। তবে অনেক ক্ষেত্রে বাধ রক্ষায় তা অকার্যকর

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ