আজ ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

৭ দিনেও উদ্ধার হয়নি হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র,

 

খুলনা ব্যুরো প্রধান
জিয়াউল ইসলাম:

খানজাহান আলী থানাধীন মশিয়ালী গ্রামের জাকারিয়া-জাফরিন ও মিল্টন বাহিনীর গুলিতে গ্রামের নিরীহ ৩ জন নিহত,৮/৯জন গুলিবিদ্ধ এবং ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীর গণপিটুনিতে হামলাকারীদের একজন নিহতের ঘটনায় গঠিত অনুসন্ধানী তদন্ত কমিটি তাদের কাজ শুরু করেছে। ২২ জুলাই বুধবার সকাল থেকে সারা দিন চার সদস্যের তদন্ত কমিটি মশিয়ালীর ঘটনাস্থলে এসে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজনের সাক্ষাৎকার গ্রহন করেছে। এদিকে ঘটনার এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও হামলায় ব্যবহৃত অবৈধ অস্ত্র এখনও উদ্ধার করতে পারিনি পুলিশ। গ্রেফতার হয়নি মামলার প্রধান আসামী জাকারিয়া জাকার ও তার ভাই মিল্টনসহ এজাহারভুক্ত ১৮ আসামী। অপরদিকে ট্রিপল হত্যা মালায় গ্রেফতারকৃত মহানগর ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি শেখ জাফরিন হাসান, জাহাঙ্গীর, আরমান ও রহিম রিমান্ডে পুলিশে গুরুত্বপুর্ণ তথ্য দিয়েছে বলে সুত্রে জানাগেছে। মশিয়ালীর হত্যাকান্ডের ঘটনায় কারণ অনুসন্ধানে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশিনার(অপরাধ) এস এম ফজলুর রহমানের নেতৃত্বে কমিটির অন্য সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষাৎকার গ্রহন করে। তদন্ত কমিটির সদস্য অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) কানাই লাল সরকার ও সহকারী পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) শিপ্রা রাণী দাস গ্রামের প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষাৎকার গ্রহন করে। প্রত্যক্ষদর্শী এবং ঘটনায় আহত কয়েকজন ১৬ জুলাই এর মর্মান্তিক হত্যাকান্ডসহ হত্যাকান্ডের ঘটনার নেপত্থের ঘটনা বর্ণনা দেন। তদন্ত কমিটির অপর সদস্য অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশিকিউশন) মো. আনোয়ার হোসেন এ সময় উাপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটির সদস্য অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) কানাই লাল সরকার বলেন অনুসন্ধানে এটা তাদের রুটিন কাজ চলছে আমরা গ্রামবাসীর সাক্ষাৎকার গ্রহন করছি। এ বিষয়ে এখন কোন মন্তব্য করার কিছু নাই। অনুসন্ধানী তদন্ত কমিটির কাছে সাক্ষাৎকার প্রদানকারী হামলার স্বিকার গ্রামের মৃত আমজাদ শেখের পুত্র মো. আজাদ শেখ(৪০) এবং প্রত্যক্ষদর্শী কুদ্দুস শেখের পুত্র রফিক শেখ বলেন, গ্রামের সর্বস্থরের মানুষ জাকারিয়া-জাফরিন-মিল্টন বাহিনীর কাছে জিম্মি থেকে বহু নির্যাতন, নিপিড়ন, হামলা, মামলা সর্য্য করে বসবাস করে আসছিল। তাদের নির্যাতনের স্বিকার গ্রামের সাধারণ মানুষ আইন শৃংখলা বাহিনী বা এলাকার জনপ্রতিনিধিদের কারও সহযোগিতা পায়নি। এমন কি তাদের বিরুদ্ধে কেহ প্রতিবাদ বা কথা বল্লে বা তাদের বাহিনীর কোন সদস্যের অপরাধের বিষয় কাউকে কিছু বল্লে মুহুর্তের মধ্যে তার বিরুদ্ধে সকল ধরণের ব্যবস্থা নিতো জাকারিয়াগং। সর্বশেষ ১৬ জুলাই মিল শ্রমিক মুজিবরের বাসায় অস্ত্র -মাদক রেখে পুলিশের কাছে ধরিয়ে দেয় জাকারিয়া গং। তখন গ্রামের লোকজন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে জাকারিয়া-জাফরিন-মিল্টন বাহিনীর ষড়যন্ত্রের কথা বলে মুজিবরকে ছেড়ে দিতে বলি। ওসি সাহেব আমাদের কথায় না ছেড়ে একটি ফোন পেয়ে তাকে থানায় ধরে নিয়ে যায়। রাত সাড়ে ৮টায় আমরা জাফরিনের বাড়ীর সামনে আসলে আমাদেরকে লক্ষ করে কলাবাগান থেকে জাকারিয়া, জাফরিন, মিল্টন, জিহাদ, রাজুসহ ১৫/১৬জন অস্ত্র দিয়ে বৃষ্টির মতো গুলিবর্ষক করে, ককটেট নিক্ষেপ করে। ঘটনাস্থলে গুলিবিদ্ধ হয়ে মিল শ্রমিক নজরুল শেখ, শেখ রসুল নিহত হয়। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দ্বাদশ শ্রেনীর ছাত্র সাইফুল খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। এই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ আফসার শেখ, মো. খলিল শেখ, জুয়েল শেখ, মো. রবি শেখ, শেখ শামিম, সুজন শেখ, ইব্রাহীম শেখ, রানা শেখসহ ৯/১০জনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তিতে অবস্থার অবনতি হলে আফসার শেখ ও মো. খলিল শেখকে ঢাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠান হয়েছে। মশিয়ালী গ্রামবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন ঘটনার ৭ দিন অতিবাহিত হলো ৩টি তাজা প্রাণ গুলি করে হত্যা এবং ৯/১০জনকে গুলি করে গুরুতর আহত করার ঘটনায় প্রধান আসামী জাকারিয়া, মিল্টন গ্রেফতার না হওয়ায় গ্রামবাসী এখন আতংকিত রয়েছে। তাছাড়া বৃষ্টির মতো গুলিবর্ষনের ঘটনায় অবৈধ আগ্নে অস্ত্রগুলি এখন উদ্ধার করতে না পারায় তাদের ক্ষমতা গ্রামবাসী বুঝতে পেরেছে। তদন্তের বিষয়ে কমিটির সদস্য অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) কানাই লাল সরকার বলেন, উল্লেখ্য খানজাহান আলী থানাধীন মশিয়ালী গ্রামে জাকারিয়া-জাফরিন ও মিল্টন বাহিনী হামলায় গুলিতে ৩ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় খানজাহান আলী থানায় মামলা হয়েছে(মামলা নং-১২, তাং ১৮/৭/২০)। নিহত সাইফুলের পিতা সাইদুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলায় খানজাহান আলী থানা আওয়ামীলীগের বহিষ্কৃত সহ-প্রচার সম্পাদক শেখ জাকারিয়া হোসেন জাকার, তার ভাই মহানগর ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সহ-সভাপতি শেখ জাফরিন, অস্ত্র মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী মিল্টনসহ ২২জনের নাম উল্লেখ এবং ১৫/১৬জন অজ্ঞাতনামা আসামী করে মামলা করে । মামলায় গ্রেফতার ৪ আসামী রিমান্ডে রয়েছে। এদিকে ট্রিপল হত্যাকান্ড এবং গুলি করে নির্বিচারে গুলি হতাহতের ঘটনার নায়ক জাকারিয়া, জাফরিন, মিল্টনসহ জড়িতদের ফাসির দাবীতে বিকালে গ্রামবাসী মিছিল বের করে। মিছিলটি খুলনা যশোর মহাসড়ক হয়ে ইষ্টার্ণগেটে এসে শেষ হয়। মিছিল পরবর্তি পথ সভায় সাবেক মেম্বর ও আওয়ামীলীগ নেতা আ. হামিদ সরদার, রেজওয়ান রাাজাসহ গ্রামের বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ বক্তৃতা করেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ