আজ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২২শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

খুলনায় হত্যা মামলার আসামী অস্ত্র ব্যবহারে কথা স্বীকার করে পুলিশের কাছে 

 

খুলনা ব্যুরো প্রধান জিয়াউল ইসলামঃ

খুলনা জেলার খানজাহান আলী থানাধীন মশিয়ালীর ট্রিপল হত্যাকান্ডে বিভিন্ন ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ৮ দিনের রিমান্ডে থাকা আসামি বাহিনীর প্রধান শেখ জাফরিন। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে তিনি আরও জানান, সাদা ব্যাগে থাকা আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে গ্রামবাসীর ওপর প্রথমে গুলি চালায় তার ভাই মিল্টন হাসান। তখন জিহাদ তাকে একটি পিস্তল এনে দেয়। পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা রিমান্ডে দেওয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এদিকে ১৬ জুলাই রাতে ঘটনাস্থলে উপস্থিত কয়েকজন গ্রামবাসী জাফরিনের ভাই জাকারিয়া ও মিল্টনকে গুলি করতে দেখেছেন। এ ছাড়া মিল্টনের বসতবাড়িতে অস্ত্র লুকিয়ে রাখার গোপন কুঠুরির সন্ধান পাওয়া গেছে। অপরদিকে হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আরেক আসামি রহিম আকুঞ্জিকে গতকাল চার দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। এ নিয়ে গ্রেফতার হওয়া চারজন রিমান্ডে রয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা খানজাহান আলী থানার উপপরিদর্শক লুৎফুল হায়দার এ তথ্য জানিয়েছেন। জানা যায়, বাড়িতে বন্দুকের গুলি রেখে মুজিবর শেখ (৪২) নামের এক ব্যক্তিকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে পুলিশ দিয়ে আটক করালে জাকারিয়া হোসেন এবং তার দুই ভাই জাফরিন ও মিল্টনের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন গ্রামবাসী। ১৬ জুলাই রাতে গ্রামবাসী জড়ো হয়ে এ বিষয়ে জাকারিয়াকে জিজ্ঞাসা করলে তর্কাতর্কি হয়। এক পর্যায়ে গুলি ছোড়ে মিল্টন। এ সময় গ্রামবাসী ওই বাড়ি লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়লে একাধিক স্থান থেকে তাদের লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন নজরুল ফকির, গোলাম রসুল ও সাইফুল। এ ঘটনার পর উত্তেজিত জনতা জাকারিয়া ও জাফরিনের বসতবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ ছাড়া জাকারিয়ার আত্মীয় জিহাদ শেখকে পিটিয়ে হত্যা করে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নিহত নজরুল ফকিরের ভাইপো মো. রাসেল শেখ জানান, গুলি করার পর ১৫ থেকে ২০ জন গ্রামবাসী ওই বাড়ি থেকে দৌড়ে বের হয়ে আসেন। এ সময় মিল্টন বুক সমান উঁচু দেওয়ালের ওপর শর্টগানের মতো অস্ত্র দিয়ে গুলি করছিল। তখন বাড়ির ভিতরে কয়েকটি স্থান থেকে গুলি করা হয়। জাকারিয়ার এক হাতে টর্চলাইট ও আরেক হাতে ছোট একটি অস্ত্র ছিল। আরেক প্রত্যক্ষদর্শী হেমায়েত শেখ জানান, ‘আগে থেকেই বাড়িতে বাইর থেকে লোক এনে জড়ো করা হয়েছিল। তারা গুলি শুরু করলে আমার চাচা নজরুল ফকির গুলিবিদ্ধ হন। চারপাশে তখন একের পর এক গুলি হচ্ছে। ওই অবস্থায় চাচাকে নিয়ে খানিকটা পথ পায়ে হেঁটে ও তারপর ভ্যানে হাসপাতালে নিয়ে যাই। কিন্তু তাকে বাঁচানো যায়নি।’ এদিকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে জাফরিন পুলিশকে জানিয়েছেন, ঘটনার সময় মিল্টন তাকে সাদা একটি ব্যাগ এনে দিতে বলেন। ওই ব্যাগে থাকা আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে গুলি করে মিল্টন। ওই সময় জিহাদ তাকে একটি পিস্তল এনে দেয়। ওই পিস্তল নিয়ে পালানোর সময় ঘেরের পাশে পা পিছলে পড়ে গেলে সেটি হারিয়ে যায়। অপরদিকে মিল্টনের বাড়ির প্রধান ফটকের পাশে আধাপাকা পুরনো কক্ষে অস্ত্র, গোলাবারুদ রাখার মতো কুঠুরির সন্ধান মিলেছে। মুখটি সিমেন্ট-বালু দিয়ে ঢালাই করা ও ঢাকনি দিয়ে ঢাকা ছিল। হত্যাকান্ডের পর এলাকাবাসী ভবনটিতে আগুন ধরিয়ে দিলে পুড়ে যাওয়ার পর এ গুপ্তস্থানের সন্ধান পাওয়া যায়। খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার সরদার রকিবুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থলে যেসব অস্ত্র ব্যবহৃত হয়েছে তা সবই অবৈধ। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। উল্লেখ্য, মশিয়ালীতে ট্রিপল হত্যা মামলায় রবিবার জাফরিনসহ তিন আসামিকে রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ