আজ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং

বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষের ধারণা “দ্বিতীয় বিবাহ” করতে হলে প্রথম স্ত্রীর অনুমতি লাগে

 

সুমাইয়া ইয়াসমিন, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি আইন বিভাগ :

আসুন জেনে নেই প্রচলিত এই ধারণা কতটুকু সঠিক।
ইসলামী শরীয়তের বিধান অনুযায়ী একজন পুরুষ শর্তসাপেক্ষে একত্রে সবোর্চ্চ ৪ টা স্ত্রী রাখতে পারেন। বাংলাদেশের প্রচলিত কোন আইন দ্বারা পুরুষের এই অধিকার নষ্ট করা হয়নি। তবে বাংলাদেশের আইনে পরবর্তী বিবাহের ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম সংযুক্ত করেছে।

মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ ১৯৬১ এর ৬ধারা অনুসারে একজন পুরুষ যদি প্রথম স্ত্রী থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিবাহ করতে চাই তাহলে তাকে সালিশি পরিষদের অনুমতি নিতে হবে।

এই সালিশ পরিষদ গঠিত হবে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এবং স্বামী ও স্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত প্রতিনিধি দ্বারা।যিনি দ্বিতীয় বিবাহ করতে চান তাকে চেয়ারম্যান বরাবর আবেদন করতে হবে। আবেদনে স্ত্রী অনুমতি দিয়েছে কিনা উল্লেখ করতে হবে।

স্ত্রী যদি অনুমতি নাও দেয় সলিশ পরিষদ সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে অনুমতি দিতে পারবে।

সালিশ পরিষদ যদি অনুমতি না দেয় তাহলে সহকারী জজ আদালতে চ্যালেঞ্জ করা যাবে। তখন সহকারী জজের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।

সালিশ পরিষদ এর অনুমতি ছাড়া বিয়ে করলে বিয়ে হবে না বিষয়টা এমন নয়। সালিশ পরিষদের অনুমতি ছাড়া বিয়ে করলে বিবাহ বৈধ হবে কিন্তু তা একটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে এবং যার শাস্তি 1 বছর পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ড অথবা ১০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবে।এ ধরনের মামলায় শাস্তি হওয়ার সম্ভাবনা ১০০%।

দ্বিতীয় বিবাহ করার জন্য স্ত্রী যদি মামলা দায়ের করতে চায় তাহলে স্ত্রীকে পরবর্তী বিবাহের কাবিননামা সংগ্রহ করতে হবে। তাহলে দ্রুত বিচার সম্পন্ন হবে।

সুতরাং স্বামী যদি সালিশী পরিষদের অনুমতি ছাড়া বিবাহ করে তাহলে স্ত্রী স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করতে পারবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ