আজ ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

তুমি রবে নিরবে হৃদয়ে মম

 

সাবাত আল্ ইসলাম :

রাজনীতি এবং আধিপত্য থেকে আফ্রিকার কালো মানুষের মুক্তিদাতা হিসেবে বিশ্বব্যাপী নেলসন ম্যান্ডেলার যে ভাবমূর্তি তৈরি হয়েছে, সেটা দেশে দেশে রাষ্ট্রের চরিত্র, আমজনতার হাল অবস্থা, বিশ্বমানবতার বা মানুষের ন্যায্য অধিকারের প্রশ্নে এবং আন্তঃরাষ্ট্রীয় সম্পর্কের ফ্রেমওয়ার্কে সময়ের পরিক্রমায় নানান মাত্রা লাভ করেছে।

আফ্রিকার দেশে দেশে তো বটেই, বাদবাকি বিশ্বেও নেলসন ম্যান্ডেলার অবস্থান, গ্রহণযোগ্যতা এবং দর্শন নানান মাত্রায় গৃহীত (বা নিগৃহীত!) হয়েছে। তাই তাঁর পরিচিতি কোনো কোনো সময় বিশ্বরাজনীতির চরিত্র, নয়া পুঁজিবাদী বিশ্বের চালক ও চলক, মার্কিন ও তার সহযোগীদের যুদ্ধবাজ পররাষ্ট্রনীতি এবং আন্তর্জাতিক কর্পোরেট পুঁজির স্বার্থের বাটখাড়ায় মাপজোক করে উপস্থাপিত হয়েছে। উপস্থাপনার এ রাজনীতি তাঁর মৃত্যুর পরেও সমান তালে জারি আছে। তাই নেলসন ম্যান্ডেলাকে একজন মানবতাবাদী, মহান ব্যক্তিত্ব, শান্তির দূত, আত্মত্যাগের মহান আদর্শ, পারসন অব উইজডম, সহনশীলতার উদাহরণ এবং আধুনিক দক্ষিণ আফ্রিকার স্রষ্টা প্রভৃতি বিশেষণের আবরণে ঢেকে দেওয়া হচ্ছে।

পৃথিবীর দেশে দেশে গণমানুষ তথা নিচতলার মানুষের মধ্যে– নিপীড়িত, নির্যাতিত, বঞ্চিত মানুষের মধ্যে এক ধরনের স্বজন হারানোর বেদনা যেমন ডুকরে উঠছে, তেমনি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে দেশে সমাজের উঁচুতলার মানুষের মধ্যেও বিশেষ করে তৃতীয় বিশ্বের রাষ্ট্রকাঠামোর ব্যবস্থাপনায় সমাজের সুবিধাভোগী শ্রেণিও শোকগাথা রচনা করছেন। এমনকি বর্ণবাদের মতো ভয়াবহ অসম সম্পর্ককে যারা সমাজে নিষ্ঠার সঙ্গে জারি রেখেছে এবং নিজেদের শ্রেণিস্বার্থের জন্য নানান ছদ্মবেশে বর্ণবাদী রাজনীতির প্রয়োগ করছে, তারাও বর্ণবাদবিরোধী এ মহান নেতাকে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানিয়েছে!

সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিষয় হচ্ছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এবং ইজরাইলের প্রধানমন্ত্রী, যারা ম্যান্ডেলার জীবতাবস্থায় বিশেষ করে তার সক্রিয় বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের সময়কালে তাঁকে সন্ত্রাসী, কমিউনিস্ট (গালি অর্থে!), নিকৃষ্ট প্রাণী বলে সকাল-বিকাল গালি দিতেন, তাঁরাও বিশেষণের প্রাবল্যে এবং সম্মানের ফুলঝুড়িতে ভরিয়ে দিয়েছেন ম্যান্ডেলার মৃত্যুকে।

মৃত্যু মানুষকে মহান করে দেয়। কেননা মৃত্যু মানুষকে সব ধরনের হিসেব-নিকেশের উর্ধ্বে নিয়ে যায়। তাই মৃত্যুর শোকগাথা সাধারণত সকল প্রকার ইহজাগতিক স্বার্থের উর্ধ্বে মানুষের মনের গভীর থেকে আপনাআপনি সঞ্চারিত হয়।

‘’ম্যান্ডেলার প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করতে গিয়ে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার বলেছেন, তিনি ছিলেন একজন শ্রেষ্ঠ মানুষ, কেননা তিনি মানুষের মধ্যকার শ্রেষ্ঠত্বটাকেই বের করে আনতে পেরেছিলেন। মানুষের শ্রেষ্ঠত্ব আপনি তখনই উপলব্ধি করবেন, যখন আপনি তাঁর সঙ্গে বা তাঁর সাহচর্যে থাকবেন।’’

ধন্যবাদ ম্যান্ডেলা। জীবতকালে যেমন তুমি এসব পুঁজিবাদী, সাম্রাজ্যবাদী, আধিপত্যবাদী এবং সাদা-কালোর বর্ণবাদী রাজনীতির বিরুদ্ধে নিজের প্রতিবাদ-প্রতিরোধের ভেতর দিয়ে খোদ নিজেকেই এক কালান্তরের কিংবদন্তী করে তুলেছ– তেমনি তুমি তোমার জীবনাবসানের মধ্য দিয়েও সাম্রাজ্যবাদী রাজনীতির যে কদর্য চেহারা তা আরও একবার উন্মোচিত করলে। তাই জীবিত ম্যান্ডেলার চেয়ে মৃত ম্যান্ডেলা অধিকতর প্রেরণাসঞ্চারী।

নিখিল বিশ্বের শোষিত, বঞ্চিত, মেহনতি মানুষের সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক মুক্তির জন্য বৈশ্বিক রাজনীতিতে সাম্রাজ্যবাদ, পুঁজিবাদ এবং আধিপত্যবাদবিরোধী যে লড়াই জারি আছে, সে লড়াইয়ে তুমি সবসময় এক অশেষ অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে ছিলে, আছে এবং থাকবে।

ম্যান্ডেলা, তোমার মৃত্যু আমাদের আরও বিপ্লবী করে তোলে। তাই তুমি রবে নিরবে হৃদয়ে মম।জন্মতিথির এই দিনে জানাই তোমায় বিনম্র শ্রদ্ধা ও প্রণতি!

লেখা : সাবাত আল ইসলাম,
শিক্ষার্থী, ব্যাংকিং ও ইন্স্যুরেন্স বিভাগ,
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ