আজ ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

খুলনায় জাকারিয়া-জাফরিন বাহিনীর হামলার নিহত ৪

 

খুলনা ব্যুরোপ্রধান
জিয়াউল ইসলাম :

খানজাহান আলী থানাধীন মশিয়ালী গ্রামে খানজাহান আলী থানা আওয়ামীলীগের সহ-প্রচার সম্পাদক শেখ জাকারিয়া তার ভাই মহানগর ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি শেখ জাফরিন হাসান এবং অস্ত্র মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী শেখ মিল্টন হাসান বাহিনীর হামলার গুলিবিদ্ধ গুরুতর আহত সাইফুল শেখ (২২) খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং গ্রামবাসীর হামলায় রাতে জাকারিয়ার চাচাতো ভাই জিহাদ(৩০) মারাগেছে। এর আগে বৃহস্পতিবার সংঘর্ষে গুলিবৃদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থল মিল শ্রমিক নজরুল ইসলাম(৫৫) ও রাজমিস্তীর হেলাপার গোলাম রসুল(৩৫) নিহত হয় মোট মৃতের সংখ্যা দাড়াল চার জন। হত্যাকান্ডের পর বিক্ষুব্ধ উত্তেজিত গ্রামবাসী জাকারিয়া, জাফরিন, মিল্টন, জিহাদ,জাহাঙ্গীর, সাগর ও রাজুর বাড়ী ভাংচুর করে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছে। ঘটনার জন্য গ্রামবাসী প্রশাসনকে দায়ি করে বলছে সরকারি দলের নাম ভাঙ্গিয়ে থানা পুলিশকে ব্যবহার করে নিরিহ মানুষকে মিথ্যা মামলা হামলা অত্যাচার করে অতিষ্ঠ করে তুলেছিল। এই ঘটনায় জাফরিন শেখের সহযোগী জাহাঙ্গীরকে পুলিশ যশোরের অভয়নগরের নওয়াপাড়া থেকে গ্রেফতার করেছে। জানাগেছে, গত রোজায় মশিযালী গ্রামের তুহিনের সাথে জাফরিনের দ্বন্দ হয় এর জের ধরে ঈদুল ফিতরের দিন জাফরিন বাহিনীর সাথে গ্রামবাসী মুখোমুখি অবস্থানে পুলিশের হস্থক্ষেপে উভয় পক্ষ পিছু হটে যায়। ঐ ঘটনার সুত্র ধরে কয়েক দফা গ্রামের কয়েক ব্যক্তি তাদের হামলার স্বিকার হলে শুরু হয় জাকারিয়া-জাফরিন- মিল্টন বাহিনীর সাথে শত্রুতা। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার খানজাহান আলী থানা পুলিশ আলিম জুট মিলের শ্রমিক মুজিবর শেখ(৪৫)কে গোলাবারুদ সহ আটক করে। এলাকাবাসী বলছে মিল শ্রমিককে পূর্ব শত্রুতায় ষড়যন্ত্র করে জাকারিয়া গোলাবারুদ দিয়ে পুলিশের কাছে ধরিয়ে দেয়। খবর পেয়ে মুজিবরের স্বজন ও গ্রামের কয়েকজন তাকে ছাড়াতে যায় কিন্তু পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। তারা রাত ৮টায় মশিয়ালীর হাড়াতলার মোড়ে আসলে তিন সহোদর জাকারিয়া-জাফরিন-মিল্টন, তাদের চাচাতো ভাই জিহাদ, সহযোগি আলমগীর, জাহাঙ্গীর, আরিফ, আজিমসহ ১০/১২জন তাদের উপর অতরকৃতভাবে হামলা চালায়। তারা বৃষ্টির মতো গুলিবর্ষ এবং ককটেল বোমা নিক্ষেপ করে। এ সময় ঘটনাস্থলে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায় আলিম জুট মিলের শ্রমিক নজরুল ইসলাম(৫৫) ও রাজমিস্ত্রীর হেলাপার গোলাম রসুল(২৫)। গুলিবিদ্ধ গুরুতর আহত আফসার শেখ(৬০), শামিম(২৭), রবি(৪০), খলিল(৩০) রানা(২২), আফছার শেখ(৩৪), সাইফুল(২২)সহ ৯জনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার গুলিবিদ্ধ সাইদুল শেখের পুত্র কৃষক সাইফুল শেখ (২২) ও সৌর শেখের পুত্র কৃষক আফসার শেখ(৬০) মারা যায়। মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষুব্ধ উত্তেজিত গ্রামবাসী জাকারিয়া, জাফরিন, মিল্টনের বাড়ী, অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং জিহাদ,জাহাঙ্গীর, সাগর ও রাজুর বাড়ী ভাংচুর করে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। এ সময় হামলাকারী জাকারিয়ার চাচাতো ভাই জিহাদ(৩০) গ্রামবাসীর হামলায় নিহত হয়। এই ঘটনায় তিন সহোদর জাকারিয়া, জাফরিন ও মিল্টনের আলিশান ভবনে রাতভর গ্রামবাসী আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়। আজ শুক্রবার সকালে গিয়ে দেখাযায় মশিয়ালীর এই আালিশান রাজমহলের প্রতিটি কক্ষ এবং ভবনের মধ্যে থাকা একটি প্রাইভেট গাড়ী, দুটি মটরসাইকেলসহ সকল আসবাপত্র আগুনে পুড়ে দাউদাউ করে জ্বলছে। শতশত গ্রামবাসী বাড়ী গুলোর মধ্যে ঢুকে মোবইলে ভিডিও করছে উপস্থিত প্রতিটি মানুষের মুখে একটি কথা এই সন্ত্রাসী বাহিনী এবং প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিসহ এদের মদদদ্বাতা সকলকে আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দিতে হবে। মিল্টনের বাড়ীর সামনে একটি গুপ্ত ঘরের দিকে উৎসুক জনতার ভীড় দেখে এগিয়ে গিয়ে দেখা যায় সেখানে একটি কক্ষের ফ্লোরের নিচে আন্ডারগ্রাউন্ড অস্ত্র রাখার একটি জায়গা। সেখানে এই বাহিনীর সকল অবৈধ অস্ত্রসহ গোলারারুদ রাখা হতো বলে এলাকাবাসী দাবী করছে। এলাকার সত্তোরউর্ধ শেখ তমিজ বলেন শেখ মিল্টন একটি অস্ত্র মামলায় সাজাাপ্রাপ্ত আসামী এছাড়া তার ভাই জাকারিয়া ও জাফরিন ক্ষমতাসিন দলের নাম ভাঙ্গিয়ে থানা পুলিশের ভয় দেখিয়ে এলাকায় সন্ত্রাসী রাজত্বকায়েম করে আসছিল। এলাকায় বহিরাগত অস্ত্রধারী নিয়ে আসতো যা মাঝে মধ্যে এলাকাবাসী আটক করে পুলিশের হাতে ধরিয়ে দিতো সম্প্রতি দুজনকে পুলিশে দেওয়া হয়। তাদের বাহিনীর সদস্যদের কে গ্রামবাসী ধরিয়ে দেওয়ায় তাদের ক্ষোভ সেই ক্ষোভ থেকে তারা এই হত্যাকান্ডের মতো ঘটনা ঘটিয়েছে। এ সময় উপস্থিত জনতা বলেন তাদের আলিশাল ভবনের মতো ভবন খূলনা বিভাগে কার নাই এ সব আসে কোথা থেকে তা প্রশাসনকে ক্ষতিয়ে দেখতে হবে। তারা বলে তাদের বিষয়ে থানা পুলিশকে অভিযোগ দিতে গেলে অভিযোগ নেওয়া হয়না উল্টা অভিযোগকারীকে প্রশাসন দিয়ে হয়রানি করা হয়। মশিয়ালী গ্রাম জুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করলেও পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এলাকায় তিন প্ল্টান পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষনে এসে সকালে ডিসি নর্থ মোল্লা মো. জাহাঙ্গীর আলম, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার সোনালী সেন, দৌলতপুর জোনের সহকারি পুলিশ কমিশনার বায়জিত ইবনে আকবর সহ পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাগণ গ্রামবাসীর সাথে কথা বলেন এবং ঘটনায় দায়ীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি নিশ্চিতের আশ্বাস প্রদান করেন। এ সময় উপস্থিত এলাকাবাসী পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাদেরকে এই ঘটনার দায়ী বাহিনীকে আশ্রয- প্রশ্রয় দ্বাতা প্রশাসন কর্তা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা দাবী জানায়। ঘটনার পর খানজাহান আলী থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ আবিদ হোসেন, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মো. সাজ্জাদুর রহমান লিংকনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে শান্তনা দেন। এদিকে বিকালে নিহত মিল শ্রমিক নজরুল ইসলাম(৫৫) ও রাজমিস্তীর হেলাপার গোলাম রসুল(৩৫) ও কৃষক সাইফুলের লাশ গ্রামে আনা হলে গ্রাম জুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ