আজ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২২শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

পৈত্রিক সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করে দেওয়ার অভিযোগ

 

মনিরুল ইসলাম, শ্রীপুর প্রতিনিধি :

পৈত্রিক সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার কাওরাই ইউনিয়নের পূর্ব সোনাব গ্রামে এঘটনা ঘটে।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার কাওরাই ইউনিয়নের পূর্ব সোনাব গ্রামের মৃত তাহের আলী বেপারীর ছেলে ফরিদ বেপারী তার চার কন্যা শিল্পী আক্তার,বিলকিস আক্তার,কল্পনা আক্তার,মালা আক্তার ও এক ছেলে নুরুল ইসলাম সন্তানদেরকে সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করে দিয়েছে।

এবিষয়ে ফরিদ বেপারীর বড় কন্যা শিল্পী আক্তার জানান, ২০১৬ সালে তাদের মা মারা যাওয়ার পর চার ভাই বোনদের নিয়ে মানুষের বাড়ী বাড়ী কাজ করে পেট চালাতে হতো। মা মারা যাওয়ার কিছু দিন পরেই বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করে আলাদা সংসার করে। আমারে কোন খোজঁ খবর নিতো না। দ্বিতীয় সংসারেও এক ভাই এক বোন হয়। আমাদেরকে বাবার পৈত্রিক সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে।

এবিষয়ে বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ দিয়ে বিচার চেয়ে মানুষের ধারে ধারে ঘুরে ঘুরে কোন সমাধান পাচ্ছে না সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত হওয়া চার কন্যা ও এক ছেলে। সন্তানদেরকে সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করে গোপনে পার্শবর্তী আনোয়ারার কাছে ৭শতাংশ ও শহিদ মিয়ার কাছে আড়াই শতাংশ মোট সাড়ে ৯শতাংশ জমি বিক্রি করে দিয়েছে বলে জানা গেছে। এই নিয়ে ফরিদ বেপারীর বড় কন্যা শিল্পী আক্তারের সাথে পার্শবর্তী আনোয়ারা ও শহিদ মিয়ার সাথে ঝগড়ার সৃষ্টি হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় (৪ জুলাই ২০২০ইং) শ্রীপুর মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ফরিদ বেপারীর বড় কন্যা শিল্পী আক্তার। অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে পৈত্রিক জমিতে বাড়ী ঘর নির্মাণ করে দীর্ঘ দিন দরে বসবাস করে আসছে শিল্পী আকাতার ১১ জুন পূর্ব শত্রুতার আক্রোশে পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে উচ্ছেদ করে দেওয়ার জন্য বাড়ীতে হামলা করে টিনের ঘরের বেড়া কুপিয়ে কেটে দিয়েছে। এবং মারধরের ঘটনাও ঘটেছে।

শিল্পী আরো বলেন, আমার ফুফু আনোয়ারা চাচা শহিদ বাবার সঙ্গে প্রতারনা করে কৌশলে বাবার সম্পত্তি দলিল করে নিয়েছে। বাবার সম্পত্তির উপর আমরা দির্ঘ দিন ধরে নিজের মতো করে ভোগ দখল করে আসছি। এবং বসত-ভিটা, বাড়ি সবই রয়েছে। বাবাকে দফায় দফায় সম্পত্তি ভাগ করে দেওয়ার অনুরোধ করলেও চাচা শহিদ ও ফুফু আনোয়ারা তা করে দিতে দেননি। জমির ভাগ-বাটোয়ারার কথা বললেই বাবা বাড়ি ছেড়ে অন্য জায়গায় চলে যাওয়ার কথা বলতেন। ভাগের সম্পত্তি দেই-দিচ্ছি করেও দিতেন না। সম্পত্তি থেকে আমাদের ভাই বোনদের বঞ্চিত করে দেওয়ার জন্য বিভিন্ন সময় মারধর করে,বাড়ীতে হামলা করে আমাদেরকে মেরে ফেলার হুমকী দিচ্ছে। এখন আমরা নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি।

এবিষয়ে ফরিদ বেপারী মোবাইল ফোনে বলেন,আমি চলতে পারিনা তাই সাড়ে ৯শতাংশ জমি বিক্রি করে দিয়েছি। আমি আমার সন্তাদেরকে অন্য জায়গা থেকে কিছু জমি দিয়েছি, এবং আমার সন্তান আমাকে তিন থেকে চারবার মারধর করেছে। আমি চার মাস জৈনা বাজার ভাড়া থেকেছি । এখন আমার আর কিছুই করার নাই। অনেক দিয়েছি আর দিতে পারবনা।

কাওরাইদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আঃআজিজ বলেন, বিষয়টি আমি শোনেছি তবে উত্তরাধিকার আইন অনুযায়ী বাবার সম্পত্তির সন্তানেরাই তো সমান ভাবে ভাগ করে পাওয়া কথা। তবে ফরিদ বেপারীর তার কন্যা ও ছেলেদেরকে না বলে অন্য জায়গাতে বিক্রি করে দিয়েছে।

শ্রীপুর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনিরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,সরেজমিনে গিয়েছিলাম শিল্পী আক্তার তার বাবা ফরিদ বেপারীর সঙ্গে সম্পত্তি নিয়ে বিভেদ ছিল। ফরিদ বেপারী তার সাড়ে ৯ শতাংশ সম্পত্তি চাচা শহিদ ও ফুফু আনোয়ারা নিজের নামে দলিল করে নিয়েছে। শিল্পী তার বাবকে সম্পত্তি ভাগ করে দেওয়ার অনুরোধ করলেও তা করেননি। তবে ফরিদ বেপারী তার চার কন্যা ও এক ছেলের সাথে বেইমানি করেছে । সন্তানদেরকে কিছু জমি দেওয়া উচিৎ ছিলো।

বর্তমানে ফরিদ বেপারী তার দ্বিতীয় স্ত্রী নিয়ে অন্য জায়গায় বসবাস করতেছেন। মায়ের মৃত্যুর পর ভাই বোন উত্তরাধিকার আইন অনুযায়ী সম্পত্তির সমান ভাগ পাওয়া কথা। তবে শিল্পী ও তার ভাই বোনেরা ভাগ পাচ্ছিলেন না বলে তার পরিবারের অভিযোগ।

গাজীপুর জেলা জজ কোর্টের এ্যাভোকেট আর এ রোমান মন্ডল বলেন,ভাই-বোনের সম্পর্কই সবচেয়ে মধুর। তবে মাঝেমধ্যে এই সম্পর্কেও ফাটল দেখা দেয়। বিশেষ করে বাবা-মায়ের রেখে যাওয়া সম্পত্তি নিয়ে প্রায়ই ভাই-বোনদের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এ নিয়ে মামলা-মোকদ্দমার সংখ্যাও নেহাত কম নয়। এসব মামলায় বোনদের প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করার ঘটনাই বেশি দেখা যায়।

বাবা থাকা অবস্থায় মেয়ের বিয়ে না হয়ে থাকলে বাবার কাছ থেকে ভরণপোষণ পাওয়ার অধিকার রয়েছে। বাবা বা মা মারা গেলে বোনেরাও সম্পত্তির ভাগ পাবেন। কোনোভাবেই সন্তানদের বঞ্চিত করার কোনো সুযোগ নেই।

মুসলিম আইনে বাবা বা মা মারা যাওয়ার পর তাঁর যদি ছেলে ও মেয়ে থাকে, তবে রেখে যাওয়া সম্পত্তিতে ছেলে যা পাবেন, মেয়ে তার অর্ধেক পাবেন। অর্থাৎ ভাইয়েরা যা পাবেন তার অর্ধেক বোনদের বুঝিয়ে দিতে হবে। ইচ্ছা করলেই সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করা যাবে না। যদি তাদের বাবাকে কেও প্রতারনা করে কিংবা কোন কৌশলে ওই জমি রিখিয়ে নিয়ে থাকে এতে সন্তানেরা ওই বাবার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা বা আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ