আজ ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

বর্তমান প্রেক্ষাপটে অনলাইন ক্লাস

 

নাফিসা তালুকদার :

দীর্ঘ ৩ মাসেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো কারণ করোনাতে ছেয়ে গেছে দেশ। সাময়িক ভাবে অন্যান্য প্রতিষ্ঠান সীমিত আকারে চালু হলেও চালু হয়নি কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।
সরকারি নির্দেশনাতে করোনা মুক্ত থাকতে অনেকটা গৃহবন্দী হয়ে আছেন শিক্ষার্থীগণ।
এরই মাঝে সরকারি আদেশে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো তাদের পাঠদান অব্যাহত রাখতে শুরু করেছেন অনলাইন ক্লাস। কিছু কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পাঠদানের পাশাপাশি পরিক্ষার কার্যক্রম ও শুরু করেছেন।

সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো অনলাইন ভিত্তিক পাঠদান শুরু করলেও পরিক্ষার বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত এখনও গ্রহণ করেনি। এ বছরের বোর্ড পরিক্ষা গুলো ও অনিশ্চয়তার মুখে পড়ে আছে।

আসুন জেনে নেই অনলাইন শিক্ষার কিছু সুবিধা এবং অসুবিধার কথা।

প্রথমে সুবিধার কথাই বলা যাক:

১. গৃহবন্দী শিক্ষার্থীদের মাঝে পড়াশোনা বিমুখ হয়ে ওঠা থেকে মুক্তি দিতে অনলাইন ক্লাস সহযোগিতা করছে।

২. অনলাইন ক্লাস করতে গিয়ে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যাবহার করে শিক্ষা গ্রহণ করতে গিয়ে শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা তা সম্পর্কে নতুন নতুন বিষয় শিখছেন।

৩. অনলাইন পাঠদান এবং গ্রহনের মাধ্যমে শিক্ষক শিক্ষার্থীর মাঝে নেটওয়ার্কিং এবং একে অপরের সাথে যোগাযোগ বজায় থাকছে।

৪ . রেকর্ডং অনলাইন ক্লাস বারা বার দেখার সুযোগ এবং ক্লাস লেকচার গুলো নিজের কাছে সংরক্ষণ করে রাখার সুযোগ পাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা।

৫. এ সময়ে প্রযুক্তিগত জ্ঞান এবং বিভিন্ন অনলাইন সেমিনার এবং ওয়ার্কশপে অংশ গ্রহণ করার সুযোগ বৃদ্ধি পেয়েছে শিক্ষক শিক্ষার্থী উভয়েরই।

আসুন জেনে নেই অনলাইন ক্লাসের অসুবিধা সমূহ:

১. অনলাইন ক্লাসের জন্য বিশেষভাবে যে যিনিস গুলো প্রয়োজন তা হচ্ছে স্মার্ট ডিভাইস যেমনঃ ল্যাপটপ, স্মার্ট ফোন ইত্যাদি এখন বালাবহুল্য বাংলাদেশের প্রত্যেক শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের এসকল ডিভাইস না থাকায় অনেকেই অনলাইন ক্লাসের সাথে সংযুক্ত থাকতে পারছেননা ।

২. বেশিরভাগ শিক্ষার্থী লকডাউনের কারনে গ্রামে অবস্থান করার জন্য নেটওয়ার্কের সমস্যার জন্য অনলাইন ক্লাসের ঠিকভাবে সংযুক্ত হতে হয়রানির স্বীকার হচ্ছেন।

৩. অনলাইন ক্লাসে সংযুক্ত হতে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন ইন্টারনেট সংযোগ তার জন্য আলাদা করে খরচ হচ্ছে অর্থ যার যোগান দেবার সামর্থ অনেকের নেই।

৪. অনলাইন পরিক্ষা যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো চালু করেছেন তাতে বেশিরভাগ শিক্ষার্থীর পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকায় একটা শ্রেণীর শিক্ষার্থী অন্যান্যদের চেয়ে মেধাবী হয়ে ওঠার পরেও তারা ভালো পরিক্ষা প্রদান করতে সক্ষম হচ্ছেন না এবং এই বিষয়ে মেধার মূল্যায়নেও জটিলতা তৈরি হয়েছে।

৫.ভার্চুয়াল ক্লাসের মাধ্যমে প্রকৃত ক্লাসের পাঠদানের এবং পাঠ গ্রহনের আনন্দ হারিয়ে গেছে। শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের যে প্রকৃতগত আচরণ এবং সম্পর্ক তা এখানে নেই বললেই চলে।

এভাবেই চলছে বাংলাদেশের শিক্ষা কার্যক্রম । আরও অনেক সুবিধা অসুবিধা থাকতে পারে, তবে শিক্ষার উদ্দেশ্য কিন্তু জ্ঞান অর্জন এটা মাথায় রেখেই এগিয়ে যাওয়া উচিত । অনলাইনে পাঠদান অবশ্যই নতুন একটি দিগন্ত এ দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য। তবে ক্যামেরা সামনে পাঠদান এবং গ্রহনের যেহেতু আমাদের দেশের শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের অভিজ্ঞতা কম তাই কমবেশি ভুল ভ্রান্তি তৈরি হবেই এবং সাথে সাথে এর সমাধান ও প্রয়োজনীয়। যে সকল শিক্ষার্থী প্রযুক্তি এবং স্মার্ট ডিভাইসের অভাবে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের থেকে পিছিয়ে যাচ্ছে তাদের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা এখন সময়ের প্রয়োজন কারণ সে তার জ্ঞান অর্জনের অধিকার হতে বঞ্চিত হচ্ছে।

পরিক্ষা কোনো শিক্ষার্থীর মেধা যাচাইয়ের কেন্দ্র হলেও জ্ঞান অর্জনটাই মূল উদ্দেশ্য হওয়া উচিত ।
মুখস্থ বিদ্যার মাধ্যমে ভালো রেজাল্ট সম্ভব তবে ভালো শিক্ষার্থী নির্ধারণ সম্ভব নয়। এখন সবচেয়ে বেশি সময় ধরে যারা গৃহবন্দী তারা নিজেদের মেধাকে ঝালাই করে নিতে আরও একটু পড়াশোনা করার একটি সুযোগও পেয়েছেন তাই এটাকে কাজে লাগানোই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

এই মহামারী এক সময় কেটে যাবে আবার নতুন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো খুলে দেওয়া হবে। এদেশের স্কুল কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় আবারও মুখরিত হবে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের পদচারণায়। কৃত্রিমতা ভেঙ্গে প্রকৃত পাঠদান শুরু হবে।

মহামারী শেষে ফিরে আসবে শিক্ষা, আনন্দ, উল্লাস, এবং মানুষ ফিরে যাবে তার নির্দিষ্ট কর্মস্থলে এটাই এখন সকলের অপেক্ষার কেন্দ্রবিন্দু।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ