আজ ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুলাই, ২০২১ ইং

ঘুষের টাকায় সাবেক সাব রেজিস্ট্রার হানিফ গাজীর রমরমা সুদের ব্যবসা

 

খাঁন ইমরান, বরিশাল প্রতিনিধি :  

বরিশালের উজিরপুর উপজেলার ওটরা ইউনিয়নের জুগিরকান্ধা গ্রামের বাসিন্দা সাবেক জেলা সাব রেজিস্ট্রার হানিফ গাজীর সুদ ব্যবসায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন গ্রামবাসী। সুদ দিয়ে খালি স্ট্যাম্প এবং টাকার অংক না বসিয়ে গ্রাহকের স্বাক্ষর আদায় করা হয় চেকে। এরপর সময়মত সুদ ও আসল টাকা দিতে না পারলে মারধর থেকে শুরু করে তার ঘরবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তালা মেরে দেয়া এবং জমি দখল করতেও পিছুপা হয় না। ওই গ্রামের বহু ব্যক্তি তার নিকট থেকে সুদে টাকা নিয়ে এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছে। আর সুদখোর হানিফ গাজী বীরদর্পে গ্রামে সুদের রামরাজত্ব কায়েম করেছেন। অভিযোগ পাওয়া গেছে চাকরিকালীণ সময় ঘুষ বাণিজ্য করে অল্প সময়ের মধ্যে বিপুল অংকের টাকার মালিক বনে যাওয়া হানিফ গাজী টাকার নেশায় এখন সুদের জমজমাট ব্যবসা খুলে বসেছেন। ওটরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শৈশব কুমার মন্ডল অভিযোগ করেন, দুই বছর পূর্বে সুদখোর হানিফ গাজীর কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা ঋণ নেন। সুদে আসলে দেড় লাখ টাকা পরিশোধ করার পরও তার ৫০ হাজার টাকার ঋণ শোধ হয়নি। এ কারণে হানিফ তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তালা ঝুলিয়ে দেয়। এতেই শেষ নয়, টাকা দেয়ার জন্য তাকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করতে থাকে। এক পর্যায়ে হানিফ গাজীর কাছ থেকে জোরপূর্বক স্বাক্ষরযুক্ত দু’টি চেক নেন। যেখানে কোন টাকার অংক লেখা ছিল না। বর্তমানে হানিফ গাজী সুদে-আসলে ৫ লাখ টাকা দাবি করছেন। তার সুদ থেকে রক্ষা পেতে এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিদের দ্বারস্থ হয়েও কোন সমাধান মেলেনি শৈশবের। উপজেলার জামবাড়ি এলাকার বাসিন্দা সুমন্ত বিশ্বাস জানান, হানিফ গাজীর কাছ থেকে মাত্র ২৫ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। এরপর সুদে আসলে ৭৫ হাজার টাকা দিলেও সে এখনো তার আসল ২৫ হাজার টাকা দাবি করে আসছেন। ওই টাকা না দেয়ায় তাকে বিভিন্নভাবে হুমকিধামকি দেয়া হচ্ছে। এর জের হিসেবে আমার মাছের ঘের দখল করে নেয় হানিফ গাজী। ভাড়ায়চালিত মোটরসাইকেল চালক সীমর পাড় অভিযোগ করেন সাব রেজিস্ট্রার পদে চাকরিরত অবস্থায় হানিফ গাজী ঘুষ ছাড়া কোন কাজ করতেন না। এ কারনে তার বিভিন্ন হিসাব নম্বরে বিপুল অংকের টাকা জমা হয়। চাকরি থেকে অবসরে গিয়ে ওই ঘুষের টাকায় শুরু করেন রমরমা সুদ বাণিজ্য। জুগিরকান্ধা গ্রামের একাধিক ব্যক্তি জানান, সুদ ব্যবসায়ী হানিফ গাজীর প্রধান টার্গেট হচ্ছে হিন্দু ব্যক্তিরা। তার কিছু চামচা দ্বারা অর্থ সংকটে থাকা হিন্দুদের বাড়ি বাড়ি পাঠিয়ে টাকা ঋণ নিতে উৎসাহ জোগান। এরপর সুদে টাকা দিয়ে পুরোপুরি পাল্টে যায় সুদী মহাজন হানিফের চেহারা। আসল টাকা উত্তোলনের চেয়ে সুদের টাকা উত্তোলনে বেশী ব্যস্ত থাকেন। এভাবে চলতে থাকে হানিফের সুদ ব্যবসা। তার এ অবৈধ ব্যবসার কারনে অনেক হিন্দু পরিবার বাড়িঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য হানিফ গাজীর মোবাইলে কল দেয়া হলে তিনি রিসিভ করেন। সাংবাদিক পরিচয় জানতে পেরে লাইনটি কেটে দেন। উজিরপুর থানা সূত্র জানিয়েছে হানিফ গাজীর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ