আজ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

পূবের আলো.নিউজ সহ বিভিন্ন  অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ প্রসঙ্গে

হাসনাত কাইয়ূম,  সরাইল প্রতিনিধি : 
গত ১০/০৭/২০২০ ইং তারিখ পূবের আলো. নিউজ ও নতুনমাত্রা.নিউজসহ বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টালে সরাইলে কোটিপতির কাছে ধরাশায়ী এক মুক্তি যোদ্ধার অসহায় পরিবার, বাড়ী দখলের চেষ্টা” শিরোনামে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে তার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। অভিযোগটি সম্পূর্ন মিথ্যা বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। অভিযোগের মূল ঘটনা আড়াল করে আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন ও হয়রানির উদ্দেশ্যে একটি কল্প কাহিনী তৈরি করে পূবের আলো সহ বিভিন্ন  অনলাইন পোর্টালে  একটি সংবাদ  প্রকাশ করে-যাহার আদৌ কোন ভিত্তি নেই। মূল ঘটনা হচ্ছে আমি আজ থেকে ১৭/১৮ বছর  যাবত চাকুরীর সুবাদে চট্টগ্রামের পতেঙ্গায়, ফেনী জেলা, কুমিল্লা জেলার লাকসাম উপজেলায় কর্মরত ছিলাম ও বর্তমানে নোয়াখালী জেলায় কর্মরত আছি। আমি পরিবারের একমাত্র ছেলে সন্তান উপার্জনক্ষম ব্যাক্তি। বাড়ীর বাহিরে থাকা অবস্থায় অভিযোগকারী আমার চাচত বোন রহিমা খাতুন লুবনা ও তার পরিারের লোকেরা আমার বৃদ্ধ পিতা, মাতা ও স্তীকে বিভিন্ন সময়ে মানসিক ও শারিরীকভাবে নির্যাতন করে এবং বাড়ী ছাড়ার হুমকি দেয়-যাহা প্রতিবেশীরাই প্রত্যক্ষদর্শী। আমার পরিবারের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে পৈত্রিক বসত ভিটি ছেড়ে পার্শ্ববর্তী গ্রাম অরুয়াইলের আঃ জাহেদ মিয়ার বাড়ীতে ৭ বৎসর পূর্বে বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করি। তখন থেকেই অভিযোগকারীগন আমার পিতার বাড়িটি দখলের পায়তারা করে আসছে। আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে আমি ১০ বছর ৩য় শ্রেণীর চাকুরী কের কয়েক কোটি টাকার মালিক হয়ে ব্রাক্ষ্মনবাড়ীয়ায় বাড়ীসহ অরুয়াইলে ৫ম তলা ফাউন্ডেশন নিয়ে একতলা বাড়ী নির্মান করেছি। প্রতিবেদন টির তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বলছি ব্রাক্ষ্মণবাড়ীয়ায় আমার নামে কোন বাড়ী বা জায়গা নাই। অরুয়াইলে  ৫ শতাংশ জায়গার মধ্যে ৩ শতাংশ জায়গার অন্দরে ১২০০ বর্গফুট বিশিষ্ট ফাইলিং ব্যতীত বসবাসের জন্য আমার ছোট বোন জামাই জনাব হুমায়ুনকে দিয়ে ৪র্থ তলা দালানের নক্সা তৈরি করে নিম্নমানের নির্মান সামগ্রী দিয়ে একতলা ভবনটি পিতার জায়গা বিক্রি করে প্রাপ্ত অর্থ দিয়ে ভবনটি নির্মান করি। ৭ বছর পূর্বে অরুয়াইলে আমার নিজ নামে ৩ শতাংশ জায়গা ৬,৬০০০০/-টাকা দলিল মূল্যে খরিদ করি যাহার অর্থ বাবার ২৩ শতাংশ নাল ভূমি ২০৪,০০০/-টাকা দলিল মূল্যে বিক্রয়, পিতার বিভিন্ন সময়ে ধান বিক্রয় হইতে ১,৫০,০০০ টাকা, স্ত্রীর স্বর্নালংকার বিক্রয়ের ২,১০০০০/টাকা এবং অবশিষ্ট টাকা নিজের সঞ্চয় হইতে যোগান দেয়। পরবর্তীতে উক্ত ৩ শতাংশ জায়গা ১২,০০০০০- টাকা দলিল মূল্যে বিক্রয় করে দেই। ২০১৭ ইং সনে আমি বর্তমানে যেখানে একতলা ভবনটি নির্মান করে বসবাস করি সেই ৫ শতাংশ  ভূমি দুইজন মালিক হইতে পৃথক দলিলে খরিদ করি। দুটি দলিল মূল্য ১৪,৫০০০০/ টাকা। উক্ত ভূমি খরিদের উৎস নিজের বিক্রয় করা ৩ শতাংশ জায়গার দলির মূল্য ১২০০০০০/ টাকা এবং রাণীদিয়া গ্রামের বাবা চাচাদের নামে ২ টি বাড়ীর ১ টি বাড়ী হইতে মোট ১৩ শতাংশ ভূমির অন্দরে পৈত্রিক বন্টনে সোয়া ৩ শতাংশ ভূমি ৫০৬০০০/- টাকা দলিল মূল্যে বিক্রয় করে বর্তমানে বসবসরত জায়গা খরিদ করি। দুটি ভূমি বিক্রয় হইতে উক্ত জায়গা খরিদের পরও কিছু টাকা সঞ্চয় রয়ে যায়। রাণীদিয়া গ্রামের যে বাড়ীটিতে আমার বাবা চাচারা বসবাস করত, সেই ভিটি বাড়ীটি ১৯শতাংশ এবং নাল ভূমি ১০ শতাংশ। ১৯৯০ সনে আমার বাবা এবং চাচা মোট ৪ জনের নামে অভিযোগকারীর পিতা মোঃ মস্তু মিয়া সমান অংশ হারে মাঠ রেকর্ডভূক্ত করেন। বর্তমানে বসবাসরত জায়গায় ঘর নির্মানের ‍উদ্যেগ নিলে আমার পিতা একমাত্র ছেলের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে রাণীদিয়া গ্রামের নিজের বসত বাড়িটি বিক্রয় করার সিদ্ধান্ত নেন। পিতার অংশে প্রাপ্ত পৌনে ৫ শতাংশ ভিটি বাড়ী আমার চাচাত ভাইদের নিকট বিক্রয়ের প্রস্তাব করেন। আমার চাচাত ভাই ও বোনেরা নামে মাত্র মূল্যে খরিদ করিতে ইচ্ছা প্রকাশ করিলে আমার পিতা গ্রামের অন্যান্য জায়গার মূল্য তূলনা করে ন্যায্য মূল্য চাওয়ায় তারা উক্ত বাড়িটি খরিদ করিতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন এবং সেই জায়গাটি কে বা কারা খরিদ করে সেটা দেখে নেবে বলে আমাকে ও আমার পিতাকে হুমকি প্রদান করে।
পরবর্তীতে অন্যত্র বিক্রয় করতে চাইলে বিভিন্নভাবে বাধা প্রদান করে। অনেক চেষ্টার পর পাশের বাড়ীর লোকজন খরিদ করতে ইচছা প্রকাশ করিলে তাদের নিকট ১৬০০০০০/ টাকা দলিল মূল্যে বিক্রয় করা হয়। এতে অভিযোগকারীগণ ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্ন সময় পুলিশ পরিবারের সদ্স্য ও মুক্তি যোদ্ধা পরিবারের কথা বলে হুমকি দামকি দিতে থাকে। অভিযোগকারীর ভাই পুলিশের কনস্টেবল পদে থাকার সুবাদে আমার নামে এবং জায়গাটি যারা খরিদ করেছে তাদের নামে অসহায় মুক্তি যোদ্ধার পরিবারের দোহাই দিয়ে সরাইল থানায় হয়রানির উদ্দেশ্যে একটি জিডি দায়ের করেন। শুধু জিডি দায়ের করেও ক্ষান্ত হননি আমাকে মানসিকভাবে চাপে রাখার জন্য পূবের আলোসহ বিভিন্ন  অনলাইন পোর্টালে মনগড়া, কাল্পনিক, ভিত্তিহীন ও বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করে। যাহা আদৌ সত্য নয়। অরুয়াইলের ৫ শতাংশ জায়গায় পিতার বিক্রিত ১৬০০০০০/টাকা, পূর্বের সঞ্চয়কৃত টাকা দিয়ে মোট ১৮,২৫,০০০/-টাকা দিয়ে একতলা ভবনটি নির্মান করা হয়। আমার এবং আমার স্ত্রী ছেলে মেয়ের নামে অন্য কোথাও কোন জায়গা বা কোন ব্যাংকে নগদ টাকা জমা নাই। এমনকি আমার স্ত্রী বা ছেলে মেয়ের নামে বাংলাদেশের কোন ব্যাংক শাখায় কোন ব্যাংক হিসাব বা সঞ্চয় পত্রের কোন হিসাব আদৌ খোলা হয় নাই। আমাকে মানসিকভাবে হয়রানির উদ্দেশ্যে এবং সুনাম ক্ষুন্ন করে মানসিকভাবে চাপে রাখার জন্য কোটিপতি শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূর্ন মিথা ও বানোয়াট। অভিযোগকারীনি এবং অভিযোগকারীনির ভাই পুলিশ বিভাগে কনস্টেবল পদে কর্মরত আবদুল্লাহ আল মাসুম মোবাইলে আমার পিতার অবশিষ্ট জায়গা তাদেরকে বিনামূল্যে দিয়ে দিলে অথবা বিক্রিত ভূমি ফেরৎ এনে অর্ধেক মূল্যে তাদেরকে দিলে থানায় জিডি ও অন্যান্য অভিযোগ তুলে নিবে অন্যথায় পরবর্তীতে আরোও নানানভাবে হয়রানি করার হুমকি প্রদান করে। আমার পিতা যাদের কাছে বাড়ী বিক্রয় করেছেন তাদের দিয়ে যে হুমকি প্রদানের অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ন মিথ্যা, ভিত্তিহীন।  তারা গ্রামের অত্যন্ত ভাল মানুষ হিসাবে পরিচিত এবং তাদেরই একজন জনাব আঙ্গুর মিয়া উক্ত গ্রামের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সুনামধারী সহকারী শিক্ষক।  আমার পিতার রাণীদিয়া গ্রামের জায়গাটি খরিদ করার কারনে তাদের নামে মিথ্যা বানোয়াট কথা লিখে অভিযোগ করে থানায় জিডি ও অনলাইন পোর্টালে সংবাদ প্রকাশ করে। যাহা আদৌ সত্য নয়। আমি ও আমার পরিবার তাদের অত্যাচার, বিভিন্ন হুমকি ও মামলা মোকদ্দমা হইতে পরিত্রান পেতে প্রশাসনের সহযোগীতা চাই।
আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ মানিক
পিতা- মোঃ রুহুল আমীন
গ্রাম – বাদে অরুয়াইল, উপজেলা- সরাইল
জেলা- ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ