আজ ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

সাহারা খাতুন এর রাজনৈতিক জীবন 

মো.গোলাম মৌলা :
সাহারা খাতুন ১৯৪৩ সালের ১ মার্চ ঢাকার কুর্মিটোলায় জন্মগ্রহণ করেন।তার পিতা-মাতা হলেন যথাক্রমে, আব্দুল আজিজ ও টুরজান নেসা। তিনি বি.এ এবং এল.এল. বি ডিগ্রী আর্জন করেন। তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, এবং বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক। এছাড়াও তিনি আন্তর্জাতিক মহিলা আইনজীবী সমিতি ও আন্তর্জাতিক মহিলা জোটের সদস্য। তিনি বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টেএকজন আইনজীবী হিসেবে তার কর্মজীবন শুরু করেন।
সাহারা খাতুন ছাত্র জীবনেই রাজনীতিতে যুক্ত হন।তিনি একজন সংসদ সদস্য।তিনি বাংলাদেশ সরকারের প্রথম মহিলা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী, এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীনির্বাচিত হয়েছিলেন।তিনি হলেন কল্যাণমূলক রাজনীতির অগ্রদূত ও শেখ হাসিনার প্রিয় ব্যক্তি।
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় সাহারা নিজে রাজনৈতিক অপরাধে অভিযুক্ত হয়েছিলেন।
নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন, ২০০৮ এর নির্বাচনি তথ্য বের হলে দেখা যায়, তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ঢাকা-১৮ হতে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি আনন্দিত হয়ে জনগণকে তার দেয়া প্রতিশ্রুতি; সড়ক পুননির্মাণ ও ড্রেন সংস্করণের কথা পুনরায় ব্যক্ত করেন।বিজয় লাভ করার পর। আর তিনি বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী মনোনীত হন।তিনি ৬ ই জানুয়ারি ২০০৯ সালে তার দফতরে প্রবেশ করেন। ২০১২ সালে মন্ত্রণালয়ের রদবদল ঘটলে তিনি বাংলাদেশ সরকার এর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।
বিডিআর বিদ্রোহ এবং সাহারা খাতুনঃ-
২০০৯ সালে বিডিআর বিদ্রোহের সময়, সাহারা খাতুন বিদ্রোহীদের সাথে আলোচনার জন্য প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। বিদ্রোহী জওয়ানদের আলোচনায় উদ্বুদ্ধ করতে এবং অস্ত্র সমর্পণে রাজি করাতে তিনি বাংলাদেশ রাইফেলসের সদরের প্রবেশ করেন।
এ বিদ্রোহের ঘটনার ফলে ৫৩ জন সেনা কর্মকর্তা ও ৩ জন সেনা পরিবারের সদস্য নিহত হয়।
এই সময়ে বাংলাদেশ রাইফেলকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অন্তবিচারের কাঠগরায় দাড় করায়। সাহারা খাতুন বিডিআর গণহত্যায় তার ব্যর্থতার জন্য বিশেষভাবে নিন্দিত হন।সরকারের হেফাজতে থাকাকালীন গ্রেপ্তারকৃত বিদ্রোহীদের অনেকের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় তার মন্ত্রণালয় সমালোচিত হয়।
গতকাল ব্যাংককের বামুনগ্রাড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।এর আগে তিনি ২রা জুন ২০২০ সাথে বার্ধক্যজনিত কারণে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে প্রথমে ঢাকার গুলশানে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর অবস্থার অবনতি হলে তাকে থাইল্যান্ডের ব্যাংককে বামুনগ্রাড হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।
কল্যানমুলক রাজনীতির অগ্রদুত হিসেবে বাংলাদেশ এর মানুষ তাকে যুগ-যুগ মনে রাখবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ