আজ ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জুলাই, ২০২১ ইং

চিকিৎসা খাতে আসা ক্ষতিগ্রস্থদের সুরক্ষার দায়িত্ব রাষ্ট্রের 

এডভোকেট মোঃকাওসার হোসাইন::

 

যেকোন রাষ্ট্রের চিকিৎসাসেবা খাত একটি গুরুত্বপূর্ন খাত।কোন মানুষ অসুস্থ্য হলে ভরসা ও বিশ্বাস নিয়ে চিকিৎসা সেবা পাওয়ার জন্য চিকিৎসালয়,চিকিৎসক বা চিকিৎসা সংশ্লিষ্টদের কাছে যায়।এটি একটি সেবামূলক খাত হওয়ায় চিকিৎসা সেবা প্রদানের সাথে সংশ্লিষ্ট সবার উচিত সেবামূলক মানসিকতা নিয়ে অসুস্থ্য রোগীদের যথাযথ সেবা প্রদান করা।কারো কারো মধ্যে এমন মানসিকতা এবং দায়িত্বশীল ভূমিকা দেখা ও যায়।কিন্তু প্রায়ই দেখা যায় মানুষের অসুস্থ্যতার দুর্বলতাকে পুজি করে অধিক মূনাফা লাভের ঘৃন্য ও হীন কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ে চিকিৎসা সেবা প্রদানের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

অতিরিক্ত ফি আদায়,চিকিৎসা অবহেলায় মৃত্য ঘটানো,রোগীর স্বজনদের মারধোর,দূর্ব্যবহার,সংবাদ কর্মীদের মারধোর,লাঞ্চিত করা,লাইসেন্স ছাড়া বা নবায়ন না করে মেডিকেল চালানো,পরিবেশগত ছাড়পত্র না থাকা বা চিকিৎসার উপযুক্ত পরিবেশের অভাব,বিধি মোতাবেক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা না থাকা,ভূয়া মেডিকেল রিপোর্ট প্রদান,কর্মস্থলে ডাক্তারদের অনুপস্থিতি,অনুমোদনহীন বা মেয়াদ উত্তীর্নওষুধ বিক্রি,ভুল চিকিৎসা করা সহ চিকিৎসাখাতের নানাবিধ অনিয়ম ও দুর্নীতির অসংখ্য ঘটনা গনমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যানে আমরা নিয়মিত দেখি বা জানতে পারি।

এজাতীয় অন্যায় বা অনিয়মের বিষয়টি যখনই সামনে চলে আসে তখন কখনো চিকিৎসা সেবা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের মালিক,কখনো চিকিৎসক,কখনো সংশ্লিষ্ট কর্মচারী বা অন্যান্যদের অন্যায়,অপরাধ,খামখেয়ালীপনা, লোভী মানসিকতা কিংবা অমানবিক কর্মকান্ড প্রকাশিত হয়।তখন সবার মাঝে উক্ত বিষয়টি নিয়ে আলোচনা,সমালোচনা বা হইচই শুরু হয়ে যায়।চিকিৎসা খাতের এজাতীয় অনিয়ম,অব্যবস্থাপনা,অপরাধ বা দুর্নীতি যাদের নিয়ন্ত্রন বা প্রতিরোধ করা দরকার তারাও তখন তৎপর হয়ে উঠে,যদিও তারা নিয়মিত চিকিৎসাখাত সংশ্লিষ্ট বিষয়াদী বিধি মোতাবেক তদারকি,নিয়ন্ত্রন ও যথাসময়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করলে এজাতীয় অনিয়ম,অব্যবস্থাপনা,দুর্নীতি বা অপরাধ ব্যাপক হবার কথা না।

পাশাপশি চিকিৎসাখাতেরএজাতীয় অনিয়ম দূর্নীতি বা অপরাধ প্রকাশিত হবার পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও বিচারবিভাগের সক্রিয় ভূমিকায় এমন অনিয়ম বা অপরাধের সাথে সংশ্লিষ্ট অনেক অপরাধীর শাস্তিও হয়।কিন্তু একটি বিষয় অনেক সময়ই গুরুত্ব পায় না যে, চিকিৎসা সেবা খাতে এমন অনিয়ম,অব্যবস্থাপনা,অপরাধ বা দূ্নীর্তির জন্য সরলবিশ্বাসে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা বহু রোগী ও তার স্বজনদের জীবন,শরীর,অর্থ কিংবা নানাবিধ বিষয় চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্থ ও হয়রানীর শিকার হয়।তাদের মধ্যে কতিপয় ভিকটিম পরিবেশ,পরিস্থিতি ও যোগ্যতা অনুযায়ী কখনো কখনো ক্ষতিপূরন বা অন্যকোন আইনানুগ প্রতিকার পেলেও বেশীরভাগ ক্ষতিগ্রস্থ রোগী বা স্বজনরা বিভিন্ন কারনে কোন সুরক্ষা,ক্ষতিপূরন বা প্রতিকার পায় না।কিন্তু চিকিৎসা সেবা নিতে আসা কোন মানুষ যাতে ক্ষতিগ্রস্থ না হয় তার সুরক্ষা এবং কোনক্রমে ক্ষতিগ্রস্থ হলে তার ক্ষতিপূরন ও যথাযথ প্রতিকারের দায়িত্ব রাষ্ট্রের।এজন্য নানাবিধ বিষয়াদি বিশ্লেষন ও বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে চিকিৎসা সেবা খাত সংশ্লিষ্ট আইনকে যুগোপযোগীকরন ও যথাযথ প্রযোগের ব্যবস্থা গ্রহন এবং এইখাত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সক্ষমতা বৃদ্ধি করে তাদের কর্মকান্ডের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতায় আনায়ন অতীব জরুরী।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ