আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

রাবিতে ৯ জুলাই থেকে অনলাইন ক্লাস, ছাত্র ফ্রন্টের পাঁচ দফা দাবি

 

 

 

রাবি প্রতিনিধি :

করোনা সংক্রমণ এড়াতে গত মার্চ থেকেই দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। এই অবস্থায় শিক্ষার্থীদের একাডেমিক ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অনলাইন ক্লাসের দিকে ঝুঁকছে সরকার। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যবৃন্দও সম্মতি দিয়েছেন অনলাইন ক্লাসের জন্যে। ইতোমধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাস চালু হয়েছে। এবার প্রাতিষ্ঠানিকভাবে অনলাইনে ক্লাস শুরু করতে যাচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি)।

আগামী ৯ জুলাই বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়টি সকল বিভাগে অনলাইনে ক্লাস শুরু করবে। এজন্য মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ অধিকর্তা ও ইনস্টিটিউট পরিচালকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল আলোচনায় বসবে রাবি প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান বলেন, অনেক বিভাগেই শিক্ষকরা আনঅফিশিয়ালি অনলাইনে ক্লাস নিচ্ছেন। অফিশিয়ালি আমরা আগামী ৯ জুলাই থেকে অনলাইন ক্লাস নেয়া শুরু করবো। ইতোমধ্যে একটি টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করা হয়েছে। অনলাইনে ক্লাস পরিচালনায় শিক্ষকরা যদি কোনও সমস্যার সম্মুখীন হন তবে তারা এই কমিটিকে অবহিত করবেন।

উপাচার্য বলেন, শিক্ষার্থীরা যদি পড়াশোনার মধ্যে সক্রিয় তাকে তাহলে তারা মানসিকভাবে ভালো থাকবে। তাই আগামী ৯ জুলাই থেকে আমরা অনলাইনে ক্লাস শুরু করতে যাচ্ছি। প্রাথমিকভাবে শতভাগ শিক্ষার্থীকে হয়ত নাও যুক্ত করা যেতে পারে। তবে ধীরে ধীরে শিক্ষার্থীরা এতে যুক্ত হবেন। শিক্ষকরা তাদের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে ক্লাস শুরু করবেন।

তিনি আরো বলেন, আরও আগে থেকে আমরা অফিশিয়ালি অনলাইনে ক্লাস শুরু করতে পারতাম। আমরা অপেক্ষা করছিলাম যদি করোনা পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হয়। কিন্তু এখন কেউ বলতে পারবো না যে কখন এটা স্বাভাবিক হবে। এত দীর্ঘ সময় তো আর বসে থাকা যায় না। তাই এখনই আমরা থিওরি ক্লাসগুলো শুরু করে এগিয়ে নিবো।

এদিকে অনলাইন ক্লাস নেওয়ার ঘোষণার প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের নেতৃবৃন্দ ৫ দফা বাস্তবায়নের দাবি জানান । ৬ জুলাই এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবিগুলো তুলে ধরেন তারা।

পাঁচ দফা দাবিগুলো হল –

১. নানাবিধ সমস্যা পেরিয়ে শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাসে অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে জরিপ করে প্রয়োজনীয় ডিভাইস ও ইন্টারনেটের খরচ বাবদ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে আর্থিক বরাদ্দ দিতে হবে।

২. অনলাইন ক্লাসে উপস্থিতির ক্ষেত্রে কোন মার্কসের ব্যাবস্থা রাখা যাবে না।

৩. বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে অনলাইন ক্লাসের মূল্যায়ন পদ্ধতি ঠিক করতে হবে। শিক্ষার্থীদের শারীরিক, মানসিক, আর্থিক অবস্থার দিকগুলোকে বিবেচনায় আনতে হবে। শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।

৪. প্রত্যেকটি ক্লাস বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব সার্ভারে সংরক্ষণ করতে হবে। এবং প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য তা উন্মুক্ত রাখতে হবে। যেন শিক্ষার্থীরা অন্য যেকোন সময়ে ক্লাসটি দেখে নিতে পারে।

৫. শিক্ষার্থীরা যেন বিভিন্ন গবেষনা এবং বিষয়ভিত্তিক বই পুস্তক অনলাইনেই নাগাল পেতে পারে সে জন্য ডিজিটাল লাইব্রেরির ব্যবস্থা করতে হবে এবং শিক্ষার্থীরা যেন একসেস করতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, রাবি শাখার আহ্বায়ক রিদম শাহরিয়ার এবং সাধারণ সম্পাদক নাহিন আহমেদ যৌথ বিবৃতিতে বলেন, ‘এই সংকটকালীন পরিস্থিতিতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সারা দেশের বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান করছেন। অনলাইনে ক্লাস করার মতো অবস্থা এ মূহুর্তে সকলের নেই। খুব অল্প শিক্ষার্থীই শহরে থাকে এবং পারিবারিক ভাবে সুযোগ- সুবিধা লাভ করে। তাদের পক্ষে অনলাইন ক্লাসে অংশগ্রহনে সহজ হলেও সকলের পক্ষে সম্ভব নয়। আর প্রত্যেক শিক্ষার্থীর অনলাইনে অংশগ্রহনের জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ না করেই ক্লাস কার্যক্রম শুরু করা হবে শিক্ষার্থীদের প্রতি বৈষম্যপূর্ণ আচরণ। তাই সকল শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে তবেই অনলাইন ক্লাস শুরু করতে হবে।’

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ