আজ ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২০শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

বৃষ্টি ভেজা বিকেলে প্রথম দেখা

 

কাব্য লেখক, শাহাদৎ রাজীন সাগর :

 

আজ বিষন্ন মন, গ্রীস্মের মাঠ ফাটা রৌদ্দুর শেষে বর্ষার প্রথম প্রহরে, দিগন্ত জোড়া আকাশে মেগ বালিকাদের লুকোচুরি আর সূর্য মামার একফালি মুচকি হাসি, পুরো দিনের অষ্ট প্রহর জুড়ে এমনটাই লক্ষ করছিলাম। ঝিরিঝিরি বৃষ্টির শব্দটা মনে করিয়ে দিচ্ছে বর্ষা যে এসেছে ধারায়। জানালার গ্রীল ধরে দূরে তাকিয়ে ছিলাম,, যতদূর চোখ যায় ঠিক ততদূর। হঠাৎ দূরালাপনিতে একটা নাম্বারের কল,, রিসিভ করে যতটা না ভাল ছিলাম তার চাইতে আরো মন্দ বললে ভুল হবেনা। স্নেহের ছোট ভাই একটা বিপদে পড়েছে, সুদূর রাজশাহী যেতে হবে, ভালবাসা নামের শব্দটাকে জীবন থেকে আর বাদ দিতে পারলাম না,, ছোট ভাইয়ের বিপদে পাশে দাড়ানোর মনোভাবটা তার প্রতি ভালবাসার প্রতীক। বেরিয়ে পড়লাম, তখনো ঝিরিঝিরি বৃষ্টি, তার মাঝেই আমাদের পথচলা। প্রায় ৭০ কিলোমিটার পথ পেরিয়ে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত শিক্ষা নগরি রাজশাহীতে পৌছালাম, তখনো বৃষ্টি তার কর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। রাজশাহীর সকল কাজ শেষ করে ছোট ভাইটার অনুরোধে নাটোরের উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম, তখন ঘড়ির কাঁটায় খুব সম্ভবত বিকাল ৪ টা। রাজশাহী থেকে নাটোর, খুব দূরে নয়, ৩৪/৩৫ কিলো হবে হয়তো, কিন্তু বৃষ্টি বিঘ্নিত দিনে এই দূরত্বটুকুই দিগুন হয়ে দাড়িয়েছে, অনেক কষ্টের পর পুরো কাদা মাখা শরীর নিয়ে গন্তব্য স্থলে পৌছাতে সক্ষম হলাম, তবে একটা কথা না বললে কিছু একটা অসম্পূর্ণ থেকে যায়, গন্তব্যস্থল একদম অচেনা একটা জায়গা হওয়ায় প্রতিটা ধাপে ধাপে এত মানুষকে যে জিজ্ঞেস করতে হয়েছে তা সত্যিই বিব্রত করে তুলেছিল। তবে এ সকল অপ্রত্যাশিত নিয়তি এক মুহূর্তে বিলিন হয়েছিল, যখন সব প্রতিকূল পেরিয়ে গন্তব্যস্থলটা খুজে পেয়েছিলাম। যাইহোক, ছোট ভাইয়ের বান্ধবিটার দেখানো পথ ধরে যখন তাদের বাসায় পৌঁছালাম তখন বিকেল ৫টা হবে হয়তো। ছোট ভাই নাফিস অনেক চালাক চতুর ছেলে বৃষ্টিতে তার শরীর ভিজেছে কিনা সন্দেহ আছে তবে আমি একদম, শরীরের কাদা নিয়ে ঘরে ঢোকার পরিস্থিতি ছিলনা তাই নলকূপ থেকে পানি তুলে নিজেই শরীরে কাদা পরিষ্কারের কাজে নেমে পড়েছিলাম, আমি খুব ব্যস্ত হয়ে পড়েছি নিজের শরীর পরিষ্কার করতে হঠাৎ একটা মৃদু মিষ্টি স্বরে কে জানি বলে উঠলেন, আসসালামু আলাইকুম, আমি উত্তর দিলাম,তবে তখনও জানতাম না সালাম টা কে দিয়েছিল। বারান্দার এপাশ থেকে ওপাশে হাটাহাটি করা এক নারী তবে তার পরিচয় জানিনা। আমি ততক্ষণে নিজের শরীরটা যতটুকু সম্ভব পরিষ্কার করেছি। ঘর থেকে বন্ধু বান্ধবীর হঠাৎ দেখা হবার পর ছোট ছোট খুনসুটি চলছে তা আমি টের পাচ্ছি, তমা- মানে নাফিসের বান্ধবী আমাকে একটা তোয়ালে এনে দিল। আমি তখন বারান্দায়, তোয়ালাটা হাতে নিয়ে হঠাৎ ডানদিকে একটু তাকিয়ে দেখি………. আমি সেই সময়টাতে চোখ ফেরাতে পারছিলাম না চোকে মুখের ভিশন লজ্জার ছাপ, ভিশন সুশ্রী, তার বর্ননা দেওয়া সম্ভব নয় কারন অল্প সময়ে তার সম্মন্ধে বেশি কিছু জানতে পারনি। আমরা তাদের বসার ঘরে গিয়ে বসলাম, অনেক সাজানো ঘোছানো একটা বসার ঘর। যাইহোক বৃষ্টির মাঝে ভেজার কারনে আমার তখন জ্বর এসে গেছে প্রায়। আমি তমাকে বললাম যে আমার একটু গরম পানি দরকার। তৎক্ষনাৎ তমা বাহিরে চলে গেল কিন্তু মজার বিষয় তিলেক দন্ডবাদেই ফিরে আসলো তমা। খানিক ঘটকা লাগলো বিষয়টা। আমাদের ততক্ষণে গল্প চলছিল তাদের পরিবার সহ নানান বিষয় নিয়ে। মিনিট ৪/৫ পর একটি ফ্লাক্সে আমার কাঙ্খিত সেই গরম পানি নিয়ে বসার ঘরে প্রবেশ করলেন তমার বড়বোন শ্যমা। শ্যমাঙ্গিনী বললে ভুল হবেনা, শ্যমাঙ্গিনি বলতে সেই মেয়েদের বোঝানো হয় যাদের মাথার চুল আর ঠোট আংশিক লালভাব আর গায়ের রংটা উজ্জ্বল ফর্সা। সবকিছুই হুবুহু মিল রয়েছে শ্যামার সাথে। আমি ফ্লাক্সটা খুলে গ্লাসে গরম পানি নিয়ে প্রথম বার মুখে পুরেছি,, কিন্তু মাত্রাধিক গরম অনুভব করলাম তাই মনে মনে কিছুটা রাগই হচ্ছিল শ্যামার উপর। তারপর ২/১ কথা বললাম তার সাথে। ভিশন গোছানো কথা,মিষ্টভাষিণী। আমাদের খাবার পরিবেশনও করছিলেন শ্যামা,সাথে তাদের ছোট্ট একটা ভাই, মটুসটু চেহারার অধিকারি বেশ ঠান্ডা ও নিরব প্রকৃতির একটা ছেলে। তার সাথেও মজা মশকরা করার পর কথা হলো একজন মহৎ ব্যক্তির সাথে অর্থাৎ মায়ের সাথে। অনেক ভাল মনের মানুষ তিনি। একটা বন্ধু প্রকৃতির মানুষ,স্বল্প সময়েও বুঝতে দেরি হয়নি আমার। আমি তখন জ্বরে কুপোকাত অবস্থা প্রায়। অসুস্থার কথা শুনে তমার আপ্রাণ চেষ্টা আমাকে ঔষধ খাওয়ানোর, সত্যিই অনেক ভাল একটা মেয়ে সে। পরিশেষে আমার একান্ত ইচ্ছায় বাসার আর একজন মহৎ ব্যক্তির সাথে কথা বলার সৌভাগ্য হল। অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য তার বাবা। অনেক মিষ্টভাষী, তার সাথে কথা বলার সময় মনে হয়েছিল আমরা তার পরিবারেই একজন। আমি একটা বেয়াদবি করেছিলাম,, তবে পিছনে একটা কারনও আছে, তারা আমাদের থাকার জন্য জেদ করলেও সেটা মানতে পারিনি কারন ফেরার পথটা অদূরে ছিলনা। শেষমেষ হালকা জ্বর আর ভেজা শরীর নিয়ে নাছোড়বান্দা বৃষ্টির মাঝেই আবার বাড়ির পথে রওনা দিলাম। পথের দুধারের সূন্দর্য্য আর ফিরে দেখা কিছু সময়কে সাথে নিয়ে যাত্রাটা আনন্দের হলেও সেটা বেশিক্ষণ টিকতে পারেনি। অচেনা রাস্তা আর আমাদের বাহকটির যান্ত্রিক সমস্যা তার কারন। কিন্তু তবুও কি ভোলা যায়, আসলে জীবনের কিছু কিছু সময় আর কিছু কিছু মানুষকে সত্যি চাইলেও ভোলা অসম্ভব ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ