আজ ৬ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুলাই, ২০২১ ইং

দোহারে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে, সরকারি খাল ভরাট করে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে

 

শহীদুল্লাহ্(সুম) – দোহার উপজেলা প্রতিনিধিঃ

 

ঢাকার দোহার উপজেলার নারিশা ইউনিয়নের শাতভিটা এলাকায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সরকারি খাল ভরাট করেছেন স্থানীয় আব্দুল আজিজ নামে এক ব্যক্তি। স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১৭ জুন সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় উপজেলার নারিশা গার্লস স্কুল সংলগ্ন এলাকায় পদ্মা নদী থেকে সংযুক্ত সরকারি খালটির প্রায় ৪০ ফিট জায়গায় বাঁশের সাথে জাল দিয়ে আবদ্ধ করে বালু দিয়ে ভরাটের প্রস্তুতি নিচ্ছে আব্দুল আজিজ। পরে ‘দোহারে খাল দখল করে রাস্তা নির্মাণ’শিরোনামে বিভিন্ন অনলাইনে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এসময় আব্দুল আজিজ উপজেলা প্রশাসনের কাছে গিয়ে একটি রাস্তার দাবি করেন।
খাল ভরাটে নিশেধাজ্ঞা দিয়ে পরবর্তীতে খালের ঐ স্থানে সরকারি ভাবে বক্স কালভার্ট নির্মাণের আবেদন দিতে আব্দুল আজিজ কে নির্দেশনা দেয় প্রশাসন।
এদিকে সংবাদ প্রকাশের পর সরকারি নিশেধাজ্ঞা অমান্য করে খালটি ভরাট করেন আব্দুল আজিজ। এমন ঘটনায় স্থানীয় বাসিন্দারা ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, এভাবে যদি সরকারি খাল দখল হয়ে যায় তাহলে দেশের আইনের প্রতি মানুষ আস্থা হারিয়ে ফেলবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বাসিন্দা জানান, এই খালটি এর আগেও প্রভাবশালীরা ৬০% দখল করে নিয়েছে। আজ নিজের প্রভাব খাটিয়ে আবার আরো একজন দখল করে নিলো। উপজেলা প্রশাসন দ্রুত এই বিষয়ে ব্যবস্থা না নিয়ে এই খালটির অস্তিত্ব বিলীন হয়ে যাবে।
এবিষয়ে নারিশা ইউপি চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন দরানী জানান, খাল ভরাটের বিষয়ে আমি কিছ্ইু জানিনা। তবে আব্দুল আজিজের বাড়ি সংলগ্ন স্থানে যাতায়াতের জন্য আবেদনের ভিত্তিতে সরকারি ভাবে একটি বক্সকালভার্ট নির্মাণ করা হবে। কিন্তু তার আগে এভাবে খাল ভরাট করা উচিৎ হয়নি।

উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা আফরোজা আক্তার রিবা জানান, শাতভিটা এলাকার আব্দুল আজিজকে কালভার্টের জন্য আবেদন করতে বলা হয়েছে। তাকে খাল ভরাটের অনুমতি দেয়া হয়নি। এর পরেও যদি আইন অমান্য করে সরকারি খাল ভরাট করে থাকে তবে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এবিষয়ে আব্দুল আজিজের মোবাইল নাম্বারে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ