আজ ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

প্রিয় তপা দাদা ভালোবেসেই গেলেন পেলেন না কিছুই 

খান ইমরান :

 

বরিশালে নগরীর পরিচিত মুখ তপা পাগলা আর বেঁচে নেই । শুক্রবার বরিশাল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্হায় তিনি মারা যান । এই তো জীবন… চিতাতেই সব শেষ’। জীবন তো একটাই। সেই জীবনে সুখ, দুঃখ-কষ্ট, ভালোবাসা নানা ঘটনা ঘটে। জীবন নাটকে কেউ কেউ বিজয়ী হয়, আবার কেউ কেউ পরাজিতও হয়। তারপরও জীবন তার গতিতে চলে। পরাজিত কিংবা বিজয়ী সবার পরিসমাপ্তি ঘটে শেষ নিঃশ^াসে। কেউ শ্মশানে কেউ বা গোরস্থানে। যে যেখানেই যাক, মূলত তাঁর জীবনের সমাপ্তি সেখানেই। বরিশাল নগরের অতি পরিচিত মুখ ‘তপা’র জীবনের আখ্যান শেষ হয়েছে চিতায় মুখাগ্নির মাধ্যমে। তপার জীবনের সুন্দর সময়গুলোতে অনেকেই তার সহযোগী ছিলেন। রাস্তায় থাকার সময়ও অনেকে খাবার দিয়ে সহযোগিতা করেছেন । কিন্তু এই করোনা মহামারীর সময় তপার ঘুনধরা (পোকা) শরীর জানার পরও যেকজন মানুষ তপার পাশে থেকে সহযোগী হয়েছেন, শেষ পর্যন্ত চিকিৎসা ও খাবার দিয়ে পাশে থেকেছেন তাদের প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতা ও একান্ত শ্রদ্ধা। তাদের কারণেই তপা অন্তত শেষ চিকিৎসা পেয়েছে। তা না হলে হয়তো রাস্তার পাশেই মরে পড়ে থাকতে হতো।

কে এই তপা? কি তার পরিচয়? এমন প্রশ্ন করলে বরিশালের অনেক মানুষই এর সদুত্তর দিতে পারবেন না। যারা এর উত্তর জানেন তারাও পরিচয় দেননি, হয়তো দেবেনও না। তাই বলে ‘তপাকে’ চেনেন না এমন মানুষ বরিশাল নগরে বেশি পাওয়া যাবে না। কম-বেশি যারা চেনেন এবং জানেন তারা কেবল তপার নেতিবাচক দিক হিসেবেই জানেন। সেটাই শহরময় বিশেষ পরিচিতি দিয়েছে তপাকে। কৈশোর কিভাবে পার করেছে তপা, সেটা কেবল তার স্বজনরাই জানেন। কিন্তু তপার পুরো যৌবন কেটেছে বরিশাল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ও সড়কদ্বীপে। কখনো খাবার খেয়ে, আবার কখনো না খেয়ে জীবন কাটাতে হয়েছে।

যেটুকু জানা যায়, তপার বাবার নাম রঙ্গলাল সাহা। তারা চার ভাই। বড় দিপক সাহা (দিপা দা), বরকা সাহা, তপন সাহা, মন্টু সাহা। তপা সাহা ছিলেন রঙ্গলাল সাহার তৃতীয় সন্তান। তাঁর বাবার বড় মুদির দোকান ছিল ভাটিখানা ও বাজার রোডের মুখে। বরিশালের ভাটিখানা ষোল বাড়ীতে তাঁর পরিবার ভাড়া থাকত। সেখানে তপার জন্ম। তপা এক সময়ে এই এলাকার নেতাও ছিলেন। তাঁদের পৈত্রিক বাড়ি ছিল ফরিদপুরে। তপার পরিবারিক অবস্থা নেহায়েত খারাপ নয়। অনেকটা আভিজাত্যও ছিল। কিন্তু জীবন চাকার পরিবর্তনের পাকে পরে তপাকে রাস্তায় এনে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। অথচ তপার সরল মনে ছিল ¯েœহ, মমতা এবং ভালোবাসা। কিন্তু জীবনে ভালোবাসর কাঙাল হয়ে কাটাতে হয়েছে তাঁকে। রাস্তায় থাকা, খাবার পাওয়া না পাওয়া নিয়ে তপার কোন অভিযোগ ছিল না। তবে ভালোবাসার জন্য বুকের মধ্যে তীব্র কষ্ট ছিল তার। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত সেই কষ্ট বয়ে বেড়িয়েছেন তপা।

যৌবনে যে সময়টা দাপটের সঙ্গে বেড়ানোর কথা, সেই সময় তপাকে অযথা পথে পথে ঘুরে বেড়াতে হয়েছে। কৈশোর ও যৌবনে বরিশালের রাজনীতি, সংস্কৃতিসহ অনেক কিছুর সাক্ষি তপা। ২৪ ঘন্টা রাজপথে থেকে নানা চড়াই-উৎরাই দেখেছেন তিনি। সব রাজনীতির মানুষেরা কমবেশি তপার পাশে থেকেছেন ৫, ১০, ২০ কিংবা ১০০টা দিয়ে। তপার চাহিদা ছিল অতি সামান্য একটা রুটি কিংবা এক বেলার খাবার পেলেই তৃপ্ত হয়েছেন। কোনদিন বেশি কারো কাছে চেয়েছেন এমন তথ্য জানা নেই। অসমেয়র পৌড়ত্বে বেশি কাবু করে ফেলেছে তপাকে।

গত ছয় মাস ধরে শরীর বেশি খারাপ হয়ে যায়। বিশেষ করে গত দুই মাস ধরে শরীরে পোকা বাসা বাঁধে। পোকার যন্ত্রণায় অস্থির তপার চিকিৎসা হচ্ছিল না। ওই অবস্থায় চিকিৎসার কথা বললে তপা জানায়, ‘আমারে কোন ডাক্তার দেখবে না’। শেষ সময়টা বাজার রোড এলাকার সাততলা ভবনের নীচে ফুটপাতে কাটিয়েছে। সেখান থেকে হঠাৎ তপাকে যাওয়া যাচ্ছে না এমন খবর আসে। গত ১২ জুন ভোরের আলো’র ফেসবুক লাইভে দীপু হাফিজুর রহমান জানায় গত দুই দিন ধরে তপাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ওই লাইভ দেখে উত্তরণের সভাপতি জোবায়ের হোসেন শাহেদ জানায়, তপা দাকে ভাটিখানা এলাকায় দেখা গেছে। পরদিন বৃষ্টিভেজা দিনে সাহেদ তপাকে আবারো বাজার রোড এলাকার সাততলা ভবনে নীচে পৌঁছে দেয়। এরপর শুরু হয় তপার চিকিৎসা। বাজার রোড এলাকার শোভন কর্মকার নিবিড়ভাবে তপার খোঁজ খবর নিত। দুই দিন রাতে না ফেরার কারণে শোভন বিষয়টি দিপু হাফিজুর রহমানকে জানায়। তপাকে পাওয়ার পর তার শরীরের পোকাধরা ছবি তুলে দিপুসহ অনেককে জানায় শোভন। পরে কেএমসি হাসপাতালের ডা. বাবুর পরামর্শে শোভন ওষুধ খাওয়ানোর চেষ্টা শুরু করে। এই কাজে এক পর্যায় তার সঙ্গে সহযোগী হয় বাজার রোডের বাসিন্দা অরুণ দাস, মো. শাওন, সজল কুমার ম-লসহ কয়েক যুবক। তারাই তপাকে সমাজসেবা কার্যালয়ের সহযোগিতায় হাসপাতালে নিয়ে যান।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তপার পোকা শরীর নিয়ে সেবা দিতে অস্বীকৃতি জানায়। সমাজ সেবা কার্যালয়ের অনুরোধ এবং জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমানের নির্দেশে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তপাকে হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে নেয়। সেখানেই তার চিকিৎসা চলে। হাসপাতালের ওয়ার্ডবয় মো. নূর হোসেন যুগান্তকারী ভূমিকা পালন করেন। একই সঙ্গে সমাজ সেবা কার্যালয়ের সমাজসেবা কর্মকর্তা শ্যামল সেন, সাজ্জাত পারভেজ, জাহান কবির, অফিস সহকরী মো. বেল্লাল হোসেন, অফিস সহায়ক সায়েম মৃত্যুর আগ পর্যন্ত দেখভাল করেছেন। সার্বক্ষণিক দেখাশোনা করেছেন শোভন কর্মকার, মো. শাওন, সজল কুমার ম-লসহ কয়েক যুবক। তারাই হাসপাতাল থেকে লাশ নিয়ে গেছেন শ্মশানে। সেখানে শেষ কৃত্য অনুষ্ঠান সম্পন্ন করতে ভূমিকা রেখেছেন শ্মশানের কর্মীরা।

করোনার এই মহামারীর মধ্যে তপার চিকিৎসায় এবং শেষ সময়ে যারা সহযোগী হয়ে পাশে ছিলেন তাদের ধন্যবাদ দিলে ছোট করা হবে। তাদের প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতা এবং শ্রদ্ধা নিবেদন করতেই হয়। যেকজন মানুষ তপার শেষ সময়ের চিকিৎসা এবং শ্মশানের কাজে সহযোগিতা দিয়েছেন তাদের এই যাত্রা অব্যাহত থাকুক। করোনার সময় যে মানবিকতার আহ্বান জানানো হয়েছিল এই মনুষগুলো সেই মানবিকতা আহ্বান ছড়িয়ে অনেক উর্ধ্বে উঠেছেন। তাদের প্রতি আবারও কৃতজ্ঞতা

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ